ফয়সাল ভাইয়ের জন্মদিনে অফুরান শুভেচ্ছা

ফারুক ফয়সাল। বাংলাদেশের বিনোদন সাংবাদিকতায় ছিলেন এক উজ্জ্বল নাম। বলা যেতে পারে যতদিন তিনি সরাসরি সাংবাদিকতায় ছিলেন, প্রচলিত নিয়মের বাইরে গিয়ে, এক ব্যতিক্রমী ধারা তৈরি করেছিলেন। এখন তিনি কানাডা ভিত্তিক বিশ্ব বাঙালী শীর্ষক একটি সংগঠনের চালিকাশক্তি। বিশ্বের শিল্প ও সংস্কৃতি প্রেমি মানুষের কাঙ্খিত একজন। তবে, ফয়সাল ভাইয়ের সংগে আমার রসায়নটা ভিন্ন। লিখতাম আমি স্কুল বেলা থেকেই। রেডিও’র (রাজশাহী বেতার) স্টুডেন্টস ফোরামে অংশ নিতাম, পরে গ্রন্থনা ও উপস্থাপনা করতাম। ঢাকায় তিতুমীর কলেজে পড়ার সময়ও লিখতাম, চলচ্চিত্র সংসদ আন্দোলন করতাম। সেই সূত্রেই পরিচয়। শ্রদ্ধা এবং স্নেহের সম্পর্ক। একদিন টাইম ম্যাগাজিন হাতে ধরিয়ে, মার্টিনা নাভ্রাতিলভার এক বিশাল প্রতিবেদন ধরিয়ে দিয়ে বললেন, ‘অনুবাদ নয়, এটা পড়ে একটা বড়ো প্রতিবেদন লিখে দাও’। দিলাম। পড়ে বললেন খুব ভালো হয়েছে। ওই সপ্তাহেই চিত্রালী’র স্পোর্টস পাতায় বের হলো সেই প্রতিবেদন। আমার নামেই। প্রকাশিত হবার পর পরই বিল করে, আহমদ জামান চৌধুরী’র অনুমোদন নিয়ে, অবজারভার ভবন থেকে টাকা তুলে দিলেন। এমন হতে থাকলো একের পর এক। শুরু হয়ে গেলো আমার পেশাদার সাংবাদিক জীবন। সেই তখন থেকেই সাংবাদিকতায় তিনি আমার পথ প্রদর্শক। ১৯৭১ এর মাঝামাঝি মুক্তিযোদ্ধা দের সহায়তা করার জন্য হানাদার বাহিনীর গুলিতে শহীদ হওয়া এক বুদ্ধিজীবীর সন্তান। আজ ২১ এপ্রিল ফয়সাল ভাইয়ের জন্মদিন। শুভেচ্ছা ফয়সাল ভাই। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন জীবনের প্রতিটি বছর।
মুজতবা সউদ