নেতিবাচক চরিত্রে অভিনয় করে ইতিবাচক সাড়া পাচ্ছেন ওয়াসিম

জীবনে প্রথমবার অভিনয় করেই বেশ প্রশংসিত হলেন,তাও আবার নেতিবাচক চরিত্রে অভিনয় করে। গত ২৯ নভেম্বর মুক্তি পাওয়া সার্ফিং নিয়ে নির্মিত ‘ন ডরাই’ ছবির আয়েশার বদমেজাজি ও হিংস্র চরিত্রের বড় ভাই লিয়াকত এর কথা। যাকে পর্দায় এক দয়া মায়াহীন রাগী চরিত্রের লিয়াকত নামেই সব চিনেন।কিন্তু তাঁর প্রকৃতি নাম ওয়াসিম সিতার। জীবনে প্রথম অভিনয় করেই দর্শক সমালোচক’দের কাছে বেশ প্রশংসা কুড়াচ্ছেন। ২৮ নভেম্বর প্রিমিয়ার শো’তে সিনেমা শেষে সবাই একবাক্যে ছবির নায়ক-নায়িকার পাশাপাশি ওয়াসিমের লিয়াকত চরিত্রের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। লিয়াকত চরিত্রে অনবদ্য অভিনয় করেছেন ওয়াসিম সিতার। মুক্তির পর থেকেও দর্শকরা হল থেকে বেরিয়ে বেশ বাহবা দিচ্ছেন ।কিন্তু সিনেমা দেখার সময় দর্শকরা দারুণ ক্ষীপ্ত হোন এই লিয়াকতের নিষ্ঠুরতা দেখে।এখানেই তাঁর সার্থকতা মিলেছে,দর্শকদের ভালোবাসা পেয়েছেন। চট্টগ্রামের ছেলে ওয়াসিম সিতার, যার কখনোই অভিনয় করার কথায় ছিলোনা। মিউজিশিয়ান হওয়ার লক্ষে,স্বপ্ন পূরণে ঢাকা আসেন।কিন্তু সেই স্বপ্ন ভেঙে গেলে,তাঁর সাথে দেখা হয় মরহুম হুমায়ূন সাধু’র সাথে। তাঁর হাত ধরেই শুরু করেন নির্দেশনার কাজ।প্রায় দুই বছর হুমায়ূন সাধু’র সাথে সহকারী নির্দেশক হিসেবে কাজ করেন।তারপর নির্মাতা আশফাক নিপুনের সাথেও প্রায় তিন বছর সহকারী হিসেবে কাজ করেন।২০১৪ সালে তাঁর প্রথম একক নির্দেশনায় চ্যানেল আই’তে নাটক প্রচারিত হয়।সেই থেকে এখন পর্যন্ত একজন পুরোদস্তুর নির্মাতা হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন নাটক,ওয়েব সিরিজ,ওভিসি ও ডকুমেন্টারি নির্দেশনা দিয়ে। তাহলে হঠাৎ অভিনয়ে কিভাবে আসলেন জানতে চাইলে বিনোদন বিচিত্রা’কে অভিনেতা ওয়াসিম সিতার বলেন, ‘ন ডরাই’ ছবির কাস্টিং ডিরেক্টর হিন্দোল রাই দাদায় আমাকে এই ছবিতে কাজ করার প্রস্তাব দেন।তখন হিন্দোল রাই দাদা আমার একটা কাজে অভিনয়শিল্পী হিসেবে কাজ করছিলেন। তারপর গল্প শোনালো ভালো লাগলো স্ক্রিন টেস্ট নিলেন। তারপর দিন আমাকে ফোন দিয়ে পরিচালক তানিম রহমান অংশু ভাই ও প্রযোজক মাহবুবুর রহমান ভাই তারা আমাকে লিয়াকত চরিত্রের জন্য নির্বাচন করেন।
চরিত্রটি করার জন্য তাঁকে খুব পরিশ্রম করতে হয়েছে।এমনটাই জানালেন ওয়াসিম।বললেন,আমি নিজেকে এভাবে তৈরি করেছি,যে দর্শকরা পর্দায় লিয়াকত চরিত্রটি দেখবে ততবারই মানুষ তাকে ভয় এবং ঘৃণা করে।আমি বারবার “No Country for old man” ভিলেন জাবির বার্ধেম এর কথা মনে করেছি।কক্সবাজারের প্রেক্ষাপটের কথা মাথায় রেখে আমি রিয়েল ক্যারেক্টার দেখে নিজেকে লিয়াকত চরিত্রে প্রবেশ করেছি।
এখন থেকে কি এমন নেতিবাচক চরিত্রে দেখা যাবে কিনা এই প্রশ্নের জবাবে ওয়াসিম বলেন, মন্দ চরিত্রে অভিনয় করা মন্দ নয়। আমি এই চরিত্রে অভিনয় করে আশার চেয়েও বেশি ভালোবাসা পেয়েছি দর্শকদের।তার জন্য আমি দর্শকদের কাছে কৃতজ্ঞ। কিন্তু অভিনয়ের ব্যাপারে চরিত্র যেটাই হোক, গল্প যদি আমাকে ভাবায় এবং আমার যদি কিছু করার আছে বলে মনে হয় তাহলে আমি সব চরিত্রেই অভিনয় করবো।
বর্তমান ব্যস্ততা নিয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এই সিনেমা নিয়ে ব্যস্ত থাকার কারণে আমার পরিচালনার কাজে কিছু সমস্যা হয়েছে।অনেকগুলো প্রজেক্ট জমে আছে সেগুলো শেষ করতে হবে।সামনে একটি সিনেমা ও ওয়েব সিরিজে কাজ করার কথা চলছে।সবকিছু চূড়ান্ত হলে সামনে জানাতে পারবো।
রোমান রায়