প্রিয়াঙ্কা’র জন্য দোয়া

আমরা তিনজন, ডানদিক থেকে আমি, বাংলা গানের যুবরাজ আসিক আকবর ও মডেল অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা জামান। গত বছর আমার ইউ টিউব চ্যানেলের জন্য গান দরকার ছিল। দিপ মানে সুদিপ কুমার দিপকে গান লিখতে বল্লাম। দিপ দুদিন পর দুটি গান নিয়ে হাজির। গানের শিরোনাম লুকোচুরি ও দুই দু’বার। দুটি গানেরই সুরকার ও কম্পোজিশন ভারতের শ্রী প্রিতম। দুটি গানেই কন্ঠ দিলেন আসিফ আকবর। দুই দু’বার গানে ডুয়েট গেয়েছেন জেমি ইয়াসমিন ও আসিফ আকবর। এবং গানের প্রথম সুট হলো, ২০১৮’ র ২৪ মে এবং পরে রিলিজ হলো, বাকিটা ইতিহাস..। মিউজিক ভিডিওটি শ্রোাতা দর্শকের মন জয় করে রেকর্ড গড়লো।
এবার অনেক হলো লুকোচুরি গানের ভিডিও সুটের পালা। আসিফ আকবরের সাথে একজন পারফর্মার লাগবে। প্রিয়াঙ্কা জামান নির্বাচিত হলো। নির্দ্দিষ্ট তারিখ রাতে ইউনিটের সাথে আমি ও অন্যরা পৌঁছে গেলাম পুবাইল আপন নিবাস সুটিং স্পটে। আসিফ আকবর আমাদের আধা ঘন্টা আগেই স্পটে পৌঁছে গেছেন। পরদিন সকাল আটটায় ক্যামেরা ওপেন হবে। ডিনারের পর সবাই ঘুমাতে যাবে এটাই স্বভাবিক। কিন্ত কিসের কি? প্রিয়াঙ্কা জামান কাউকে ঘুমাতে দিলেন না। অনেক প্রানচাঞ্চল্লে ভরপুর একটা মেয়ে। সবািইকে জমিয়ে মাতিয়ে রাখলেন প্রায় সারা রাত। লগ্নি কারকদের একটা টেনশন থাকে যাতে সময় মতো শুটিং শেষ হয়। দুবার মনে করে দিলাম সজাল আটটায় সুটিং। ধর্তব্যের মধ্যেই নিল না। ভোর ৪ টার সময় কোন রকমে সবাইকে রুমে পাঠিয়ে আমিও রুমে এসে ঘুমিয়ে পড়লাম। স্বভাবতই সকাল ৮ টার আগেই ঘুম থেকে উঠে মেকাপ রুমের দিকে গিয়েই থ মেরে গেলাম। প্রিয়াঙ্কাজামান মেকাপ সিটে বসা। স্টোরি লাইন আপ মত সুটিং করা সম্ভব হলো না। বৃষ্টির বাগড়া। পর পর দু দিনএকই অবস্থা। এর মধ্যে সুটিং শেষ করতে হলো।
ফেসবুকে কয়েক জনের পোস্টে জানলাম প্রিয়াঙ্কা জামানকে অসুস্থতার কারণে গত ২৬ তারিখ প্রথমে ইসলামীয়া হাসপাতালে ভর্তি ও পরে স্কয়ার হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে আছেন। রক্তে ইনফেকশন। গত ২৪ ঘন্টায় অবস্থার উন্নতি হয়নি অবনতি হয়েছে। তার বোন লিজার বরাতে বলা হয়েছে আগামী ২৪ ঘন্টায় উন্নতি না হলে লাইফ সাপোর্ট থাকবে নাকি খোলা হবে সে বিষয়ে তারা সিদ্ধান্ত নিবেন। এমন একটি প্রানবন্ত হাসি খুশি সহজ সরল মেয়ে এত অল্প বয়সে চলে যাবেন মেনে নেয়া কঠিন। নিয়তিকে এড়ানো বড় দুঃসাধ্য। তারপরও বলবো চিকিৎসক না বলা পর্যন্ত মহান আল্লাহর উপর ভরসা রেখে কি একটু অপেক্ষাকরা যায় না। প্রিয়াঙ্কা’র জন্য সবাইকে দোয়া করার অনুরোধ।
ফরমান আলী, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব