পরিবর্তন ছেড়ে দিলেন উপস্থাপক আনজাম মাসুদ

বিটিভির অন্যতম আলোচিত ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘পরিবর্তন’ এর নতুন কোন পর্ব কোরবানীর ঈদের পর প্রচারিত হয়নি। জানা গেছে, চলতি মাসের ১৫ তারিখে অনুষ্ঠানটির একটি পর্ব প্রচারিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সেটি হয়নি। কিন্তু কেন হয়নি ? সেটি নিয়ে চলছে নানান জল্পনা কল্পনা। অনুষ্ঠানটির উপস্থাপক ও গ্রন্থনাকারী, পরিকল্পক আনজাম মাসুদ জানান, ঈদের পর এই অনুষ্ঠানের নতুন কোন পর্ব প্রচারিত হয়নি।
টেলিভিশন দর্শকদের ভাষ্য মতে, ইত্যাদির পরই ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান হিসেবে বেশ জনপ্রিয়তা পায় পরিবর্তন অনুষ্ঠানটি। এর আগে আনজাম মাসুদের ‘আজকাল’ও বাংলাদেশ টেলিভিশনে বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছিল।
আনজাম মাসুদ জানান, গেলো তিন বছরেরও বেশি সময় ধরে বিটিভিতে ‘পরিবর্তন’ প্রচারিত হয়ে আসছিল। ইত্যাদির তুলনায় একেবারে নগণ্য বাজেট নিয়ে তৈরি পরিবর্তন বিটিভির দর্শক-চাহিদার তুঙ্গে ছিল বলা যায়। জনপ্রিয় এ অনুষ্ঠানটির ৩৭টি পর্ব করার পর এর নির্মাণ বন্ধ করে দিয়েছেন বলে জানালেন আনজাম মাসুদ। তিনি জানান, গেলো ১৫ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠানটির নিয়মিত পর্ব প্রচার হওয়ার কথা থাকলেও সেই শিডিউলে বিটিভিতে অন্য অনুষ্ঠান প্রচার হয়। কারণ ৩৮তম পর্ব তৈরি করেননি এটির নির্মাতা ও উপস্থাপক। বিটিভি কর্তৃপক্ষকে আনজাম মাসুদ লিখিত জানিয়েছেন, পরিবর্তন নির্মাণ কিংবা উপস্থাপনা করতে তিনি আর ইচ্ছুক বা আগ্রহী নন।
হঠাৎ করে এমন একটি জনপ্রিয় অনুষ্ঠান ছেড়ে দিলেন কেনো? এমন প্রশ্নের অবতারণা হলে আনজাম মাসুদ বলেন, মিডিয়ার বাইরে কিছুই করি না আমি। এটাই আমার নেশা। এই নেশাকেই পেশা হিসেবে নিয়েছি। অনুষ্ঠান নির্মাণ ও উপস্থাপনা, বিজ্ঞাপনচিত্র নির্মাণ, ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট- এগুলোই আমার কাজ।
তিনি বলেন, পরিবর্তনের একটি পর্ব করতে আমার মাসে ১৫ থেকে ২০ দিন সময় লেগে যায়। তার বিনিময়ে আমি যে পারিশ্রমিক পাই, সেটি রাষ্ট্রীয় শিল্পী সম্মানী কাঠামো অনুযায়ী তা খুবই নগণ্য। তারপরও ৩৭ পর্ব তৈরি করেছি। আর এই ৩৭ পর্ব তৈরি করতে গিয়ে অনুষ্ঠানটি নির্মাণ বাজেট কমপক্ষে আট বার কমানো হয়েছে। এত স্বল্প বাজেটে এমন মান সম্পন্ন অনুষ্ঠান নির্মাণ করা সম্ভব নয় বলেই এটি ছেড়ে দেওয়া।
তিনি আরও বলেন, জমকালো আয়োজনে অনুষ্ঠানটি নির্মাণ করা হয়। প্রতি পর্বে শিল্পী-কলাকুশলীদের অনুরোধ করে করে কাজটি করি। নিজের কাছে খারাপ লাগে বারবার অনুরোধ করতে। তাই যেখানে বাংলাদেশ টেলিভিশনে অনুষ্ঠান করার জন্য আবেদনপত্রের স্তুপ জমা রয়েছে, সেখানে আমি নিজ থেকে চিঠি দিয়ে অনুষ্ঠানটি বন্ধ করে দিয়েছি। যদিও মহাপরিচালক মহোদয় আমার চিঠি গ্রহণ করেননি, কিন্তু আমি চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছি অনুষ্ঠানটি আমি আর করব না। যার ফলে এ মাসে অনুষ্ঠানটি প্রচার হয়নি।
বাজেট বাড়ানোর বিষয়ে বিটিভি কর্তৃপক্ষকে কী কিছু জানিয়েছেন ? এমন প্রশ্নের উত্তরে আনজাম মাসুদ বলেন, বাড়াতে বলব কী, উল্টো আট বার বাজেট কমানো হয়েছে। মানসম্মত অনুষ্ঠান নির্মাণে বিটিভি যদি বাজেট না বাড়ায়, যোগ্য শিল্পী সম্মানী না দেয়, তাহলে যত পরিকল্পনাই করুক চ্যানেলটি কোনোদিন সেই অর্থে দর্শকপ্রিয়তা পাবে না।
জনপ্রিয় এই উপস্থাপক জানান, এই বিষয়ে তার আরও অনেক কিছুই বলার আছে। সেকথা সময়-সুযোগ হলে তিনি বলবেন। তিনি বলেন, কেউ আমাকে ভুল বুঝবেন না। আমার কারও প্রতি কোনো অভিযোগ নেই। ক্ষোভ নেই।
পরিবর্তন ছাড়লেও উপস্থাপনা ছাড়েননি কিম্বা ছাড়ছেন না তিনি। শীঘ্রি দেশের জনপ্রিয় কোন টিভি চ্যানেলে নতুন কিছু নিয়ে হাজির হবেন বলে জানান আনজাম মাসুদ।
আলমগীর কবির