রাশিয়ায় উদ্বোধন করা হলো ইউরোপের সবচেয়ে বড় মসজিদ

ইউরোপের সবচেয়ে বড় মসজিদ নির্মাণ করে রেকর্ড গড়লো রাশিয়া। মাত্র ক’মাস আগে ইউরোপের এই রেকর্ডের গর্বিত মালিক হয়েছিল রাশিয়ার রাজনৈতিক মিত্র তুরস্ক। রাশিয়ার চেচনিয়া অঞ্চলের শালি শহরে নির্মিত এ মসজিদটিতে একসঙ্গে ৩০ হাজার মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারবেন। শুক্রবার ২৩ আগস্ট চেচনিয়ার স্থানীয় কর্তৃপক্ষ ও সৌদি আরবসহ বিভিন্ন বিদেশি অতিথিদের নিয়ে আড়ম্বরপূর্ণ এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ইউরোপের বৃহত্তম মসজিদটির উদ্বোধন করা হয়। হজরত মোহাম্মদ (সা.)-এর নামে নামকরণ করা মসজিদটি নির্মাণে গ্রিক মার্বেল পাথর এবং বিশুদ্ধ স্বর্ণ ব্যবহার করা হয়েছে। চেচেন কর্তৃপক্ষ এটিকে ইউরোপের ‘বৃহত্তম এবং সবচেয়ে সুন্দর’ মসজিদ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। মসজিদটি নির্মাণ করতে সয় লেগেছে সাত বছর।
রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সহযোগী হিসেবে পরিচিত চেচনিয়ার নেতা রামজান কাদিরভ বলেছেন, আঞ্চলিক রাজধানী গ্রোজনি থেকে খানিকটা দূরের শহর শালীতে অবস্থিত এই মসজিদটি ‘স্থাপত্য শিল্পে অনন্য, এবং পরিধি ও সৌন্দর্যে অতুলনীয় হিসেবে বিশ্বে পরিচিতি পাবে। স্থানীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, বাহারি বিভিন্ন ফুল ও ঝর্ণায় সাজানো মসজিদের বাইরের অংশে অতিরিক্ত ৭০ হাজার মুসল্লির সংকুলান হবে। ২০০৭ সালে পুতিন কর্তৃক মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ অঞ্চল শাসন করার জন্য নিযুক্ত হওয়া কাদিরভ চেচনিয়ায় মসজিদ নির্মাণসহ ইসলামী বিভিন্ন কার্যক্রম পুনঃপ্রতিষ্ঠায় নেতৃত্ব দিচ্ছেন।
এর আগে রাশিয়ায় মসজিদের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন সন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন।
রাশিয়ার গ্রান্ড মুফতি তালাত তাজউদ্দিনের সঙ্গে এক সাক্ষাতে প্রেসিডেন্ট পুতিন বলেন, ২০০০ সালে এই প্রজাতন্ত্রে মাত্র ১৬টি মসজিদ থাকলেও বর্তমানে সেই সংখ্যা ১২০০তে উন্নীত হয়েছে। এতে বোঝা যায়, এ দেশে ইসলামের প্রসার ঘটছে। রাশিয়ার ১৪ কোটি ৬০ লাখ জনসংখ্যার মধ্যে মুসলমানের সংখ্যা ২ কোটিরও বেশি। দেশটির গ্র্যান্ড মুফতির দেয়া তথ্যমতে, আগামী ১৫ বছরের মধ্যে রাশিয়ায় মুসলিম জনসংখ্যার হার ৩০ শতাংশে উন্নীত হবে। যা বর্তমানে মাত্র ৭ শতাংশে রয়েছে।
অঞ্জন দাস