সাংবাদিক, লেখক ও সমাজকর্মী চিন্ময় মুৎসুদ্দি’র জন্মদিনে শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা

মৃদুভাষী, নিভৃতচারী এক সাংবাদিক চিন্ময় মুৎসুদ্দি। আমার সাংবাদিকতা বিষয়ক অন্যতম শিক্ষক। ১৯৭২ সালে সাপ্তাহিক বিচিত্রা’য় সাংবাদিকতা পেশা শুরু করেন চিন্ময় মুৎসুদ্দি। ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত যুক্ত ছিলেন সাপ্তাহিক বিচিত্রা এবং পাক্ষিক আনন্দ বিচিত্রা’র সঙ্গে। আমি “বাংলার বাণী গ্রুপ অফ পাবলিকেশনস” এ স্টাফ রিপোর্টার হিসেবে কর্মরত থাকলেও একটানা ছয় বছর নিয়োমিত কলাম লিখতাম ‘আনন্দ বিচিত্রা’য়। বলা যেতে পারে আগে তাঁর পরোক্ষ ছাত্র থাকলেও, তখন হয়ে গেছিলাম প্রত্যক্ষ ছাত্র। মৃদু হাসি লেগেই থাকতো উনার মুখে। হাসিমুখেই উনি বুঝিয়ে দিতেন অনেক বিষয়। বাংলাদেশে “ফটো সুন্দরী” বিষয়টির অন্যতম কারিগর চিন্ময় মুৎসুদ্দি। ‘দৈনিক বাংলার বাণী’ এবং ‘সাপ্তাহিক সিনেমা’ যখন বন্ধ হয়ে যায়, প্রায় কাছাকাছি সময়ে ১৯৯৭ সালে বন্ধ হয়ে যায় দৈনিক বাংলা, টাইমস, বিচিত্রা ও আনন্দ বিচিত্রা।
১৯৯৮ সালে দেওয়ান হাবিব উদ্যোগ নেন একটি পাক্ষিক ম্যাগাজিন প্রকাশনার এবং তিনি ১৯৯৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে পাক্ষিক বিনোদন বিচিত্রা নামে ডিক্লারেশন প্রাপ্ত হন। তখন চিন্ময় মুৎসুদ্দির সম্পাদনায় ‘বিনোদন বিচিত্রা’ বের হওয়ার প্রস্তুতি চলছে। এ সময় বন্ধু ইমরুল শাহেদ ডেকে নিয়ে গেলেন চিন্ময় দা’র কাছে। চিন্ময় দা’ যোগ দিতে বললেন ‘বিনোদন বিচিত্রা’য়। প্রকাশক দেওয়ান হাবিব আমার পারিবারিক সুহৃদ এবং উনিও আমাকে যোগ দিতে অনুরোধ করলেন। বিনোদন বিচিত্রায় যোগ দিলাম, ১৯৯৮ সালের ১ মার্চ, প্রকাশ হলো ‘বিনোদন বিচিত্রার প্রথম সংখ্যা। দুই যুগ ধরে নিয়মিত প্রকাশিত
হচ্ছে আমাদের ভালোবাসার এই ম্যাগাজিনটি।
শ্রদ্ধাভাজন চিন্ময় মুৎসুদ্দি, সাংবাদিক পরিচয় ছাড়াও তিনি একজন লেখক। তাঁর উল্লেখযোগ্য গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে, বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে সামাজিক অঙ্গিকার, অশান্ত পার্বত্য চট্টগ্রাম ও অন্যান্য প্রসঙ্গ, সংস্কৃতি সাংবাদিকতার স্বরূপ, সাপ্তাহিক ম্যাগাজিন প্রকাশনার কৌশল, সমকালীন গণমাধ্যম: স্বাধীনতা দ্বায়িত্ব কর্পোরেট পুঁজি ইত্যাদি। এর পাশাপাশি অনুন্নত জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে তিনি কাজ করে চলেছেন নিরলসভাবে।
আজ ২৮ মে, তাঁর জন্মদিন। জন্মদিনে আমার শিক্ষক, সাংবাদিক, লেখক এবং সমাজ সেবক চিন্ময় মুৎসুদ্দি এঁর প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা এবং শুভেচ্ছা।
মুজতবা সউদ