গওহর জামিল এর প্রয়ান দিবসে গভীর শ্রদ্ধা

এই পরাধীন ভূখণ্ডে, যখন মাথায় ঘোমটা ছাড়া মেয়েদের চলতে মানা, যখন রিকশায় বসার জায়গাটি লম্বা থান কাপড়ে ঘেরাও করে মেয়েদের বাইরে যেতে হতো, রেডিও টেলিভিশনে রবীন্দ্র সংগীতের অনুষ্ঠান হলে যখন শাসক শ্রেনীর মন্ত্রী বা কর্তারা এই ভূখণ্ডের গীতিকারদের ধমক দিয়ে বলতেন, “আপনারা এ রকম রবীন্দ্র সঙ্গীত লিখতে পারেন না”, ঠিক তখন এই ভূখণ্ডে নাচ বা নৃত্যশিল্পের প্রসার ঘটাতে সোচ্চার এবং কার্যকর পদক্ষেপ নিয়েছিলেন যিনি, তাঁর নাম গওহর জামিল। এ দেশে নৃত্যকলার এক মহান শিক্ষক এবং শিল্পী। আজ যে “জাগো ললিতকলা একাডেমী”র কথা আমরা সম্মানের সঙ্গে উচ্চারন করি তার প্রতিষ্ঠাতা গওহর জামিল। ১৯২৫ সালে (কোন কোন সুত্রে ১৯২৭/১৯২৮ উল্লেখ করা হয়েছে) বিক্রমপুরের (বর্তমানে মুন্সিগঞ্জ জেলা) সিরাজদিখানে জন্মগ্রহণ করেন এই ক্ষণজন্মা মানুষটি। আট বছর বয়সে বিখ্যাত নৃত্য শিল্পী কালু নায়ারের নাচ দেখে তিনি নাচ শিখতে উদ্বুদ্ধ হন। এরপর বিভিন্ন সময়ে তিনি ভাস্কর দেব, উদয়শংকর, বুলবুল চৌধুরী, মারুথাপার পিনাই, রামনারায়ণ প্রমুখ খ্যতিমান নৃত্যগুরুর কাছে নাচের উচ্চতর শিক্ষা নেন। ১৯৫০ সালে তিনি একটি নৃত্য বিষয়ক সাংস্কৃতিক সংস্থা এবং ১৯৫৯ সালে গড়ে তোলেন জাগো ললিতকলা একাডেমি। ১৯৮০ সালের ২১ সেপ্টেম্বর এক সড়ক দূর্ঘটনায় মাত্র ৫২ বছর বয়সে নিহত হন গওহর জামিল। এই মহান শিল্পীর প্রয়ান দিনে তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা।
মুজতবা সউদ