কিশোয়ারকে অভিনন্দন ও ভালোবাসা

আপনি তখনই সফল হবেন যখন আপনি আপনার শেকড় নিয়ে অহংকার করবেন। অনেকেই বলেন, অতীত দিয়ে কি হবে? তারা হয়ত জানেন না, অতীতেই লেখা হয় আমাদের সবার, মানে একজন মানুষের, একটা জাতির, একটা দেশের ভবিষ্যত।
অনেকেই কেন যেন বাংলাদেশকে নেগেটিভ করে দেখে বা বলে, তারা ভুলে যায়, মা যত কালোই হোক বা ফর্সা, লম্বা বা খাটো, গরীব বা পয়সাওয়ালা, শিক্ষিত বা অশিক্ষিত, মা তো মা’ই। মা যাইই হোক, দেশ যাইই হোক, সেটাই আমাদের পরিচিতি, আমাদের একান্ত আপন। বিদেশে আমাদের বা আমাদের সন্তানদের সবাই এক বাক্যে ভারতীয় বা বেশী হলে বাংলাদেশী হেরিটেজ বলেই চিনবে, এটাই বটম লাইন, পছন্দ হোক বা না হোক। বাঙালী বলে এই সুন্দর পরিচয়টা আমরা আমাদের সন্তানদের যত দ্রুত, যত গভীর ভাবে দিতে পারবো, তারা ততো বেশী শক্তি নিয়ে বড় হবে। আত্মপরিচয়ে বলিয়ান হলে পান্তা-ভর্তা, ইলিশ পোলাউ, গড়িয়ার মেলা, নববর্ষ, ভাটিয়ালী, কবির লড়াই, রবীন্দ্র-নজরুল-জীবনানন্দ, এটেল মাটির পুকুর পাড় – সবই খুব সহজেই দুনিয়া জয় করে, তাবত মানুষকে মুগ্ধ করে, মোহাবিস্ট করে। কে না জানে, শক্ত শিকড়ের গাছ বড় ও সুন্দর হয়, দীর্ঘস্থায়ী হয়। আর, ভেসে থাকা কচুরীর ঠিকানা কেউ জানে না। অভিনন্দন ও ভালোবাসা কিশোয়ার, আমাদের নূপুর, সবসময়ের অহংকারী বাঙালী ও মুক্তিযোদ্ধা কামরুল ভাইয়ের অহংকারী সন্তান।
নোমান শামীম, প্রধান সম্পাদক, মুক্তমঞ্চ, অষ্ট্রেলিয়া