সাংবাদিক আওলাদ হোসেন এর পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

চলচ্চিত্র তথা বিনোদন সাংবাদিকতার আপনজন, অতি পরিচিত মুখ, নিজের কর্মগুণে যিনি ছিলেন নন্দিত ও জনপ্রিয় একজন সাংবাদিক। সাংবাদিকতায় স্বনামখ্যাত, খ্যাতির শিখরে তাঁর অবস্থানও ছিল বিরাজমান। মানুষ হিসেবেও, চলচ্চিত্রের লোকদের এবং চলচ্চিত্র সাংবাদিকদের কাছে খুবই প্রিয় ছিলেন, এই চলচ্চিত্রশিল্প এবং চলচ্চিত্র সাংবাদিকতার অকৃত্রিম বন্ধু-সুহৃদ মোহাম্মদ আওলাদ হোসেন ।
তিনি ছিলেন অসম্ভব মেধাবী-প্রতিভাবান একজন সাংবাদিক। ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ সংবাদ থাকতো তাঁর নক্ষদর্পণে। বাংলাদেশের বিনোদন সাংবাদিকতার তথ্যব্যাংক হিসেবে খ্যাতি ছিল তাঁর। ২৮ বছরের সাংবাদিকতার জীবনে, নিজ যোগ্যতা এবং গুণে গোটা চলচ্চিত্রশিল্পের সুহৃদ এবং পরমবন্ধু হয়ে গিয়েছিলেন তিনি। চলচ্চিত্রে অনেকের সফল কেরিয়ার গড়ার ক্ষেত্রেও তিনি ভুমিকা রেখেছেন বলে শোনা যায়। সদাহাস্যজ্বোল, সজ্জন এই মানুষটি চলচ্চিত্র ও চলচ্চিত্রের মানুষদের সীমাহীন ভালোবাসতেন।
মুখের উপর অপ্রিয় সত্যি কথা বলা ছিল তাঁর অন্যতম বৈশিষ্ট। অন্যায়-অনেয্যের বিপরীতে তাঁর অবস্থান সবসময়ই ছিল বলিষ্ঠ। সাংবাদিক হিসেবে তিনি দেশের সাংবাদিকদের অধিকার আদায়ে ও চলচ্চিত্রের উন্নয়নে, আন্দোলনে নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছেন বিভিন্ন সময়ে।
আওলাদ হোসেন ছিলেন একজন নিবেদিত প্রাণ ও সদাকর্মঠ চলচ্চিত্র সাংবাদিক।
আওলাদ হোসেন যখন সিনেপত্রিকায় লেখা-লেখি করে, সেই সময় থেকেই তাঁর সাথে আমার পরিচয় হয়। পত্রিকায় লেখা-লেখির সুবাদেই, আশির দশকের শুরুর দিকে । আর শেষ দেখা হয়, তাঁর মৃত্যুর ৭/৮ ঘন্টা আগে। ১ অক্টোবর সেই দিন ছিল, আমাদের চ্যানেল আই’য়ের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। আমাদের অফিসের গেটে, অনুষ্ঠানমঞ্চের পশ্চিম কর্ণারে আমরা দু’জন প্রায় ঘন্টাখানেক দাঁড়িয়ে ছিলাম। সেদিন কেনো জানি না, আমি তাকে খুব ভালোভাবে দেখতে ছিলাম। তাঁর কপালের উপরে একটা পোড়া দাগ- এর আগে আমি কখনো লক্ষ্য করিনি। তাঁর সাথে প্রথম পরিচয়ে যা দেখিছিলাম তাতে মনে হয়, তখন এই দাগটা ছিল না, তখন সে এতো মোটাও ছিল না, একেবারে ছিপছিপে পাতলা ছিল। সেদিন তাকে দেখছিলাম আর এসব কথা ভাবছিলাম, জানি না কেনো। একসময় আমি বাসায় চলে আসি…
২ অক্টোবর ভোরে আমার ফোনে ম্যাসেজ আসে, সিনিয়র সাংবাদিক বড় ভাই মুজতবা সউদ-এর। লেখা- আওলাদ হোসেন আর নেই,,।
সাথে সাথে আমি তাকে ফোন করি, বলি- কোন আওলাদ হোসেন? সে বলে- আমাদের আওলাদ হোসেন! আমি বলি- মানে…! সে বলে- মানে আবার কী, সাংবাদিক আওলাদ হোসেন।
আমি বিনা মেঘে বজ্রপাতের, বজ্রাহত হয়ে পরলাম… কি করে হলো? কিভাবে সম্ভব? বিশ্বাস করতে পারছিলাম না, রাতে যার সাথে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে কথা বললাম… ভোরে ঘুম ভেঙে তাঁর মৃত্যু সংবাদ.. সত্যিই নিতে পারছিলাম না, হায় নিয়তি…
কথায় আছে না, অল্প শোকে কাতর, বেশী শোকে পাথর।কিছুক্ষণের জন্য সেই পাথরই বনে গেলাম। আমার প্রেসার বাড়তে লাগলো, ভয়ে শরীর কাঁপতে লাগলো, অন্যদিকে মনোনিবেশ করতে চেষ্টা করলাম….
মোহাম্মদ আওলাদ হোসেন- বন্ধু আমার, সুহৃদ আমার, ক্ষমা করে দিও, তোমার মৃতমুখ দেখতে চাইনি বলে, দেখবার সাহস হয়নি বলে, তোমার শেষ যাত্রায় হয়নি সামিল। অনন্তলোকে ভালো থেকো বন্ধু… মহান রাব্বুল আলামিন যেন তোমার সকল গুনাহ মাফ করে দেন, বেহেশত বাসী করেন। এই আমার প্রার্থনা।
একজন ভালো মানুষ, বাংলা চলচ্চিত্রের একজন সত্যিকারের শুভাকাঙ্ক্ষী ছিলেন আওলাদ হোসেন। মিশুক স্বভাবের এই মানুষটি নতুন প্রজন্মের বিনোদন সাংবাদিকদের কাছে ছিলেন বটবৃক্ষের মতো, একটি প্রতিষ্ঠানের মতো।
শারীরিকভাবে না থাকলেও তিনি বেঁচে থাকবেন, তরুণ সাংবাদিকদের আদর্শ হয়ে, প্রজন্মের হাত ধরে, আগামীর প্রজন্মে।
আজাদ আবুল কাশেম