সাংবাদিকদের করোনাকালীন সহায়তা চেক বিতরণ করলেন তথ্যমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী প্রতিশ্রুত সাংবাদিকদের করোনাকালীন সহায়তা চেক বিতরণ করছেন তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লী‌গের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ। এর অংশ হিসেবে ইতিমধ্যে ঢাকা ও চট্টগ্রামের সাংবাদিকদের মাঝে চেক বিতরণ করেছেন তিনি।
গত ৩ জুলাই চট্টগ্রামে ১৩৬ জন সাংবাদিককে করোনাকালীন সহায়তার চেক তুলে দেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। এর বাইরেও এ সময় চট্টগ্রামের ২৫ জন সাংবাদিককে বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের নিয়মিত সহায়তার চেক তুলে দেওয়া হয়েছে।
করোনাকালীন সহায়তার চেকে প্রতিজনকে ১০ হাজার টাকা করে অর্থ সহায়তা দেওয়া হয়েছে। আর বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের চেকে চট্টগ্রামের ২৫ জন সাংবাদিক ৫০ হাজার টাকা থেকে সর্বোচ্চ ২ লাখ টাকা পর্যন্ত পেয়েছেন।
অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বের কোনো দেশ করোনা মোকাবিলা করার জন্য প্রস্তুত ছিলো না। মানব সভ্যতার ইতিহাসে এ ধরণের কোন মহামারি মোকাবিলা করার ইতিহাস নেই। এতো ছোট ভাইরাস চোখেও দেখা যায় না। এ ভাইরাস ছড়িয়ে না দিয়ে মানব জাতিকে সুরক্ষা দিতে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে।’
এর আগে ৩০ জুন মঙ্গলবার রাজধানীর কাকরাইলে বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউট-পিআইবির সেমিনার কক্ষে বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের চেয়ারম্যান তথ্যমন্ত্রী স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে উপস্থিত সীমিতসংখ্যক সাংবাদিক ও তাঁদের পরিবারের মাঝে করোনাকালীন সহায়তার প্রথম পর্যায় ও ট্রাস্টের নিয়মিত সহায়তা চেক বিতরণ করেন।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শেখ হাসিনাকে সাংবাদিকবান্ধব প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বর্ণনা করে হাছান মাহমুদ বলেন, করোনা মহামারির শুরু থেকে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশের আপামর মানুষের জন্য দেশের ইতিহাসে বৃহত্তম ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। এখন পর্যন্ত সাত কোটির বেশি মানুষ সরকারি সহায়তার আওতায় এসেছে। পাশাপাশি করোনার সম্মুখযোদ্ধাদের জন্য বিশেষ সহায়তার আওতায় সাংবাদিকদের বিষয়েও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুসারে দীর্ঘদিন ধরে কর্মহীন, করোনাকালে চাকরি হারানো ও বেতন না পাওয়া—এই তিন অসুবিধায় নিপতিত সাংবাদিকদের এককালীন ১০ হাজার টাকা করে সহায়তা দেওয়া হচ্ছে বলে জানান তথ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘প্রাথমিক পর্যায়ে দেড় হাজার সাংবাদিক এ সহায়তা পাবেন এবং এ প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকবে। উপযুক্ত যাঁরা প্রথম পর্যায়ে বাদ পড়বেন, ক্রমান্বয়ে তাঁরাও এ সহায়তা পাবেন।’ করোনাকালীন বিশেষ সহায়তা ছাড়াও ২০১৯-২০ অর্থবছরে সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের নিয়মিত বরাদ্দ ১ কোটি ৬৯ লাখ ২৫ হাজার টাকা থেকে ১৯৯ জন সাংবাদিক ও তাঁদের পরিবারকে সহায়তা দেওয়া হচ্ছে, উল্লেখ করেন মন্ত্রী।
দল-মতনির্বিশেষে সারা দেশের সাংবাদিকদের এ সহায়তা দেওয়া হচ্ছে জানিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আমরা মনে করি রাষ্ট্র সবার। সুতরাং রাষ্ট্রের সহায়তা সবাইকে পেতে হবে, সে আমাদের দলের সমর্থক না হোক, আমাদের সরকারের কড়া সমালোচক হোক বা সভা-সমিতিতে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রীসহ সকলের সমালোচনা করুক। রাষ্ট্রের বাড়ানো সহযোগিতার হাত তার কাছেও পৌঁছাতে হবে বলে আমি বিশ্বাস করি।’
আলমগীর কবির