বাংলা চলচ্চিত্রের বিখ্যাত অভিনেতা ছবি বিশ্বাস

ছবি বিশ্বাস। প্রকৃত নাম শচীন্দ্রনাথ। বাংলা চলচ্চিত্রের একজন বিখ্যাত বাঙালি অভিনেতা। তাঁর অভিনীত চলচ্চিত্রের মধ্যে সত্যজিৎ রায়ের ‘জলসাঘর’, ‘দেবী’, ‘কাঞ্চনজঙ্ঘা’ এবং তপন সিংহের ‘কাবুলিওয়ালা’ উল্লেখযোগ্য। এছাড়াও তিনি বহু বাণিজ্য সফল চলচ্চিত্রে পার্শ্বচরিত্রে অভিনয় করেছেন। তিনি মঞ্চাভিনয়েও বিখ্যাত ছিলেন। সমাজ, ধাত্রীপান্না, মীরকাশিম, দুইপুরুষ, বিজয়া প্রভৃতি নাটকে ছিল তাঁর উল্লেখযোগ্য অভিনয়। অভিনয় ছাড়াও তিনি ‘প্রতিকার’ (৪৪) এবং ‘যার যেথা ঘর’ (৪৯) নামক ছবি দুটির পরিচালকও বটে। তবে পরিচালক হিসেবে তিনি বিশেষ সাফল্য লাভ করতে পারেননি।
ছবি বিশ্বাস ১৯০০ সালের ১৩ জুলাই কলকাতার অহরিটোলায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম ভূপতিনাথ। ছবি বিশ্বাসের পরিবার ছিল কলকাতার নিবাসী। যাত্রা ও থিয়েটারে বরাবরই উৎসাহ ছিল ছবি বিশ্বাসের। প্রেসিডেন্সি কলেজে পড়ার সময় এমেচার থিয়েটার করেছেন শিশির ভাদুড়ী, নরেশ মিত্রের মতো বড় বড় অভিনেতাদের সঙ্গে। ১৯৩৮ সাল থেকে তিনি পেশাদার হিসেবে নাট্যনিকেতনে যোগ দেন। এমেচার নাটক দিয়ে জীবন শুরু করলেও পেশাদারী রঙ্গমঞ্চেও তিনি নিজেকে সুপ্রতিষ্ঠিত করতে পেরেছিলেন।
১৯৩৬ সালে ‘অন্নপূর্ণার মন্দির’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে চলচ্চিত্র জগতে তাঁর পদার্পণ। এর পর অজস্র ছবিতে অভিনয় করেন ছবি বিশ্বাস। প্রথম দিকের কয়েকটিতে নায়কের চরিত্রে এবং পরে পার্শ্বচরিত্রে। ছবি বিশ্বাস অভিনীত কয়েকটি স্মরণীয় চলচ্চিত্রের মধ্যে ‘চোখের বালি’, ‘শুভদা’, ‘কাবুলিওয়ালা’, ‘প্রতিশ্রুতি’, ‘জলসাঘর’, ‘দেবী’, ‘সবার উপরে’, ‘কাঞ্চনজঙ্ঘা’, ‘হেডমাস্টার’ ইত্যাদি।
১৯৩০ থেকে ১৯৬০-এর দশকজুড়ে তিনি একাধিক্রমে বহু বাংলা চলচ্চিত্রে চরিত্রাভিনেতা হিসেবে অভিনয় করেছেন এবং ব্যাপক দর্শকনন্দিত হন। তিনি তাঁর জীবদ্দশাতেই নিছকই এক চরিত্রাভিনেতা থেকে একটি বিশিষ্ট রূপকল্পে পরিণত হয়েছিলেন। যে কোনো চরিত্র রূপায়ণে তিনি ছিলেন স্বাভাবিক অভিনয় প্রয়াসী অভিনেতা। ছবি বিশ্বাস বললেই একটি বিশেষ উচ্চতা, জলদগম্ভীর স্বর, একটি চাহনি, পদক্ষেপের বিশিষ্ট ধরণ দর্শকের মানসপটে ভেসে ওঠে। ছবি বিশ্বাস একের পর এক ছবিতে কার্যতঃ একই ধরনের চরিত্রে অভিনয় করেছেন। সব মিলিয়ে, বাঙালির কল্পনায় তিনি স্বয়ং একটি ‘টাইপ’!
গোপাল দেবনাথ
কলকাতা