স্বামীকে নিয়ে ২০০ অসহায়’কে খাবার দিলেন সালমা

মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে পুরো বিশ্ব থমকে আছে। বাংলাদেশেও এই করোনা ভাইরাসের কারণে দেশের স্বল্প আয়ের অসহায় মানুষদের জন্য জীবনধারণ অনেক কষ্টের হয়ে দাঁড়িয়েছে। মানবিকতা, মূল্যবোধ ও দায়িত্বশীলতার জায়গা থেকে গানের মানুষ সালমা ও তার ‘সাফিয়া ফাউন্ডেশন অসচ্ছল মানুষের পাশে দাঁড়ালেন। করোনা ভাইরাসের কারণে স্থবির হয়ে পড়া শহরে অনেক দিনমজুর বেকার হয়ে পড়েছেন। কাজ না থাকায় দুবেলা খাবার জুটাতে হিমশিম খাচ্ছেন তারা।গতকাল মঙ্গলবার এমন ২০০ জন মানুষকে খাদ্যসামগ্রী দিলেন কণ্ঠশিল্পী সালমা। সঙ্গে ছিলেন তার স্বামী সানাউল্লাহ নুরে সাগর।
কন্ঠশিল্পী সালমা বলেন, ‘ আমাদের সাফিয়া ফাউন্ডেশন গত বছর থেকে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছি। এর আগে বেশি কিছু বিদ্যালয়ে শিশুদের শিক্ষা উপকরণ খাতা কলম, খেলার সরঞ্জামাদি বিতরণ করেছি। এবার করোনা পরিস্থিতিতে কিছু সাধারণ মানুষের সহযোগিতা করলাম। সেটা নিজেদের সাধ্যমতোই।
সালমা আরও জানান, ‘মানুষকে সাহায্য করার জন্যই আমি আর আমার স্বামী সাফিয়া ফাউন্ডেশন গঠন করেছি। আজকে মানুষকে সহায়তা করার ছবি ফেসবুকে দিয়েছি। অনেকেই হয়তো বলবেন মানুষকে দেখানোর জন্য দান করেছি। তাদের উদ্দেশ্যে বলবো, মানুষকে দেখানোর উদ্দেশ্য করে হলেও দান করুন। এমন একশ’ মানুষ যদি দান করে তাহলে কতগুলো পরিবার ভালো থাকবে, একবার ভাবুন।
সালমার ছোট মেয়ের নামেই সাফিয়া ফাউন্ডেশন ফর এডুকেশনাল ডেভেলপমেন্ট’। এই এনজিও’এর চেয়ারম্যান সালমা, মহাসচিব তার স্বামী। আগামীতে সারাদেশে এর কাজ ছড়িয়ে দিবে বলে জানান সালমা।
মঙ্গলবার এই ফাউন্ডেশের পক্ষ থেকেই ঢাকার হাজারীবাগ ও জিগাতলাযে অসচ্ছল মানুষকে খাবার পৌছে দিতে পিকআপ নিয়ে ছুটে যান সালমা ও তার ফাউন্ডেশনের ভলেন্টিয়াররা।
সালমা বলেন, ‘গুলশান,বনানী, মগবজার, কারওয়ান বাজার ও ফার্মগেটের ওদিকের অসচ্ছল মানুষদের জন্য অনেকেই খাবার নিয়ে এগিয়ে এসেছে। কিন্তু হাজারীবাগের এদিকে এসে আমি অবাক। এদিকে হাজার হাজার মানুষ কাজহীন হয়ে বসে আছেন। কি খাবেন, তার কোন ঠিক নেই। তাদের জন্য আরও খাবারের প্রয়োজন ছিলো। কিন্তু আমি একা আর কতটা করতে পারবো। তাও যতটা সম্ভব করেছি। আগামীতে আবারও করবো ইনশাল্লাহ। ‘
এ ক্ষেত্রে হাজারীবাগ থানার পুলিশেও বেশ সহায়তা করছেন বলে জানান সালমা। সেই সঙ্গে এই পরিস্থিতিতে ওইসব অসহায় মানুষের পাশে যাদের সামর্থ আছে তাদের দাঁড়াতেও আহ্বান রাখেন এ লালনকন্যা।
রোমান রায়