চলচ্চিত্রে অভিনয় করার স্বপ্ন এখনও দেখি : নোভা

মিডিয়ায় পথচলা শুরু হয়েছিল ২০০৫ সালে প্রাণ ডালে’র একটি বিজ্ঞাপনে মডেল হয়ে। সেই সময় বিজ্ঞাপনটি করে তুমুল পরিচিত ও প্রশংসা পান।তারপর ২০০৬ সালে ‘ইউ গট দ্য লুক’ প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হোন। প্রথম নাটক ‘প্রেম ও ঘামের গল্প’-এতে অভিনয় করে সকলের নজর কাড়েন। এর সকলের ভালোবাসায় আর দর্শকনন্দিত অভিনেত্রী হয়ে উঠতে তাকে আর পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি।কথা বলছিলাম ছোটপর্দা’র জনপ্রিয় অভিনেত্রী নোভা ফিরোজ এর কথা। শোবিজ অঙ্গনে বেলায় বেলাতে কেটে গিয়েছে প্রায় ১৫ টি বছর।অভিনয়ের পাশাপাশি এই জনপ্রিয় অভিনেত্রী বিজ্ঞাপন ও উপস্থাপনার কাজ করে থাকেন। একটা সময় সকাল বিকেল নাটকের শুটিং নিয়ে ব্যস্ত থাকলেও, এখন নাটকে তার উপস্থিত কম দেখা যাচ্ছে। তার কারণটা অভিনেত্রী নিজের মুখেই বললেন। গত দুই বছর ধরে নিজেদের বিজ্ঞাপন নির্মাণ সংস্থা ‘টোস্টার প্রোডাকশন’-এ প্রচুর সময় দিচ্ছেন এই অভিনেত্রী। ‘টোস্টার প্রোডাকশন’- এর নির্বাহী প্রযোজক হিসেবে আছেন তিনি।তাই তাকে এখন দিন-রাত নিজের বিজ্ঞাপন নির্মাণ সংস্থা’কে বেশী বেশী সময় দিতে হচ্ছে।গত দুই বছরে তার এই টোস্টার প্রোডাকশন থেকে প্রায় ত্রি শট মতো বিজ্ঞাপন নির্মাণ করা হয়েছে। তাহলে কি তিনি অভিনয় ছেড়ে দিয়েছেন? এমন প্রশ্নের জবাবে বিনোদন বিচিত্রা’কে এই অভিনেত্রী বলেন, না কখনোই না।আমি সব সময় মাসের ৩০ দিন অভিনয় করার পক্ষপাতী নই। আমি গল্প,চরিত্রের গুরুত্ব দেখে কাজ করি। আমিতো আর সব সময় নায়িকা হয়ে অভিনয় করে যেতে পারবোনা।আমার স্থায়ী একটা চাকরী বা আয়ের উৎস থাকা দরকার।আমার স্থায়ী উপার্জনের মাধ্যম হিসেবে আমি টোস্টার প্রোডাকশন নিয়ে আছি।অভিনয় আমার একমাত্র পেশা নয়,অভিনয় আমি নেশা থেকে করি। তবে আমি সব সময় ভালো কিছুর সাথে ছিলাম আর ভবিষ্যৎও থাকবো।যাতে দর্শকরা আমার কাজটা দেখে পছন্দ করে তাদের ভালো লাগে। বর্তমানে নাটকের মান খুবই খারাপের দিকে এই ব্যাপারে অভিনেত্রী বলেন,এর জন্য আমরা সবাই দায়ী।একটা ইন্ডাস্ট্রি একার নয়,একটা ইন্ডাস্ট্রি একা চলতে পারেনা।এটাকে দাঁড় করাতে যেমন সবার ভূমিকাও আছে,তেমনি এর পতন হলে এর দায় সবারই। আর তাছাড়া এখানে বাজেটের একটা বিষয়ও আছে। বাজেটের স্বল্পতার কারণে চাইলেও নির্মাতা ভালো কাজ উপহার দিতে পারেন না।যে কাজটা ৪ দিন করা দরকার টাকার স্বল্পতার জন্য সেটাকে ২ দিনে করতে হয়।আর আমরা যখন ঐসময় কাজ করতাম তখন একটা নাটকে বাবা,মা,ভাই,বোন,দাদা,দাদী,বন্ধু,শিক্ষক,কাজের লোক সবাই থাকতো।আর এখন শুধু নায়ক,নায়িকা আর টেলিফোনে সীমাবদ্ধ।এটা দর্শকের ভালো লাগেনা। অভিনয়ে এতোটা বছর পার করে ফেললেন কিন্তু চলচ্চিত্রে কেন অভিনয় করলেন না? এই প্রশ্নের জবাবে নোভা জানালেন, চলচ্চিত্রে অভিনয় করার স্বপ্ন তার বরাবরই আছে। তিনি এখনও স্বপ্ন দেখেন ভালো কোনো গল্পের ভালো কোনো চরিত্রের সিনেমায় অভিনয় করতে। তার কাছে চলচ্চিত্র খুব আকর্ষিক একটা জায়গা,আর ভাগ্য।চলচ্চিত্র কাজ করতে হলে অনেক প্রস্তুতি নিয়ে নামা উচিত। এতোদিনে ব্যাটে বলে হয়নি তাই চলচ্চিত্রে কাজ করা হয়ে উঠেনি।যদি কালকেও সেই মনের মত কোনো গল্পের চরিত্র নিয়ে আসে তাহলে আমি সাথে সাথে রাজি হয়ে যাবো। অভিনয়ের সাথে দীর্ঘ দিন থাকলেও নির্দেশনায় আসার কোনো ইচ্ছে নেই তার। নিজের প্রোডাকশনের সবকিছু দায়িত্ব নিয়ে দেখভাল করা তার কাছে যতো সহজ নির্দেশণা দেয়া তার কাছে ততোটাই কঠিন ব্যাপার। ভালো কোনো গল্প চরিত্র পেলে ওয়েব সিরিজেও অভিনয় করতে আপত্তি নেই। তবে সেটা সমাজ,পরিবারের উপর ভালো প্রভাব পড়বে এমন গল্পের প্রতি তার বিশেষ দুর্বলতা আছে বলে জানান তিনি। টোস্টার প্রোডাকশন আর সংসার সন্তান নিয়ে তার সারাক্ষণ ব্যস্ততায় কেটে যায়।তাই অভিনয়ে কম দেখা গেলেও তিনি চান এখন থেকে বেছে বেছে ভালো কাজ করতে।
সম্প্রতি তাকে নারীদের রূপ সৌন্দর্য্য নিয়ে বাংলাভিশনে নোভার উপস্থাপনা ‘সৌন্দর্য কথা’ নিয়মিত প্রচার হচ্ছে।
রোমান রায়