মায়া-দ্য লস্ট মাদার’-এর গান প্রকাশনা উৎসব,মুক্তি ২৭ ডিসেম্বর

মাসুদ পথিক পরিচালিত সিনেমা ‘মায়া- দ্য লস্ট মাদার’।গত ৩ ডিসেম্বর সিনেমাটি ছাড়পত্র লাভ করেছে।সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে চলতি মাসের ২৭ তারিখ মুক্তি পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
গতকাল রোববার (১৫ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় রাজধানীর বাংলামটর বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রে সাবলীল আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়েছে ‘মায়া- দ্য লস্ট মাদার’ সিনেমার গান প্রকাশনা উৎসব। এর গানগুলো প্রকাশ করেছে দেশের প্রথম সারির অডিও-ভিডিও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জি সিরিজ।
কণ্ঠশিল্পী শেখ সাহেদের উপস্থাপনায় বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের ইসফেন্দিয়া জাহেদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত প্রকাশনা উৎসবে সভাপতিত্ব করেন বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সৈয়দ হাসান ইমাম। প্রধান অতিথি ছিলেন তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব আব্দুল মালেক।
বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ প্রযোজক পরিবেশক সমিতির সভাপতি খোরশেদ আলম খসরু, চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার, জি সিরিজের কর্ণধার নাজমুল হক ভূঁইয়া খালেদ ও কবি আসলাম সানী। আরও উপস্থিত ছিলেন- অভিনেত্রী জ্যোতিকা জ্যোতি, কণ্ঠশিল্পী বেলাল খান, সুরকার প্লাবন কোরাইশী, কণ্ঠশিল্পী ঐশী প্রমুখ।
সিনেমাটিতে রয়েছে আটটি গান। এর মধ্যে- ‘ডালিম গাছ’ শিরোনামের গানটি গেয়েছেন সংগীতশিল্পী মমতাজ। মাসুদ পথিক রচিত এই গানের সুর করেছেন প্লাবন কোরেশী। মাসুদ পথিক রচিত ‘মায়ারে’গানটি গেয়েছেন ঐশী এবং সুর করেছেন ইমন চৌধুরী। নির্মাতার কথায় ‘দুই কূলে’ ও ‘একলা মানুষ’ গানে কণ্ঠ দেওয়ার পাশাপাশি সুরও করেছেন শিল্পী বেলাল খান।
কবি কামাল চৌধুরীর কথায় ‘চল হে বন্ধু’ শিরোনামের গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন বেলাল খান। এর সুর করেছেন ইমন চৌধুরী। হেদায়েত উল্লাহ আল মামুন রচিত ‘জন্মভূমি’গানটি গেয়েছেন কোনাল। সুর করেছেন তানভির তারেক। ‘দুই জনম’ শিরোনামে আশরাফুল আলম খোকনের লেখা গানটি গেছেন শিল্পী বিশ্বাস এবং সুর করেছেন মাসুদ পথিক। পাশাপাশি ‘ওরে বন্ধু’ গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন পড়শী। মাসুদ পথিক রচিত এ গানের সুর করেছেন মুরাদ নূর।
শিল্পী শাহাবুদ্দিন আহমেদের চিত্রকর্ম ‘ওমেন’এবং কবি কামাল চৌধুরীর ‘যুদ্ধশিশু’কবিতা অবলম্বনে ‘মায়া- দ্য লস্ট মাদার’ পরিচালনার পাশাপাশি এর চিত্রনাট্যও তৈরি করেন মাসুদ পথিক।
সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত এই সিনেমায় অভিনয় করেছেন- মুমতাজ সরকার (ভারত), প্রাণ রায়, জ্যোতিকা জ্যোতি, দেবাশিষ কায়সার, সৈয়দ হাসান ইমাম, ঝুনা চৌধুরী, নারগিস আক্তার, লীনা ফেরদৌসী, ড. শাহাদাত হোসেন নিপু, আসলাম সানী ও মজিদ প্রমুখ।
২০১৬ সালে ‘মায়া- দ্য লস্ট মাদার’নির্মাণের জন্য সরকারি অনুদান পায়। সে বছরই সিনেমাটির কাজ শুরু হয়। এর কাজ শেষ করতে সময় লেগেছে তিন বছর। গত ৩ ডিসেম্বর ২ ঘণ্টা ৩ মিনিট ৭ সেকেন্ডের সিনেমাটি সেন্সর বোর্ডের সনদ পায়।
‘নেকাব্বরের মহাপ্রায়াণ’ খ্যাত নির্মাতা মাসুদ পথিকের এটি দ্বিতীয় পূর্ণদৈর্ঘ্য সিনেমা। বীরাঙ্গনা ও যুদ্ধশিশুদের সত্য গল্প নিয়ে এই প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য সিনেমা নির্মিত হলো বাংলাদেশে। সিনেমাটিতে নতুন বাংলা, বাংলা মাকে পাওয়া যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত নির্মাতা মাসুদ পথিক।
রোমান রায়