মহানায়কের প্রয়াণ দিবসে ঋতুপর্ণা

ভারতের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। একাধারে তিনি কলকাতা-ঢাকার জনপ্রিয় চিত্রতারকা। এর ওপর মুম্বাই ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি বলিউডেরও প্রিয় মুখ। সব মিলিয়ে এক অনন্য অসাধারণ চিত্র তারকা ঋতুপর্ণা। প্রায় দুই যুগের অভিনয় ক্যারিয়ারে অভিনেত্রী হিসেবে যেমন পেয়েছেন জনপ্রিয়তাÑ তারকাখ্যাতি, পেয়েছেন অসংখ্য সম্মানজনক পুরস্কার। তেমনি প্রয়াত উত্তম কুমার প্রতিষ্ঠিত শিল্পী সংসদের প্রেসিডেন্ট হিসেবে শিল্পীদের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন। গেল ২২ জুলাই ঢাকায় এসেছিলেন ঋতুপর্ণা। ওই দিনই রাজধানীর পাঁচ তারকা হোটেল ওয়েস্টিনে তার সঙ্গে কথা বলেন বিনোদন বিচিত্রার এই প্রতিবেদক। ওই সময় সেখানে আরও উপস্থিত ছিলেন বিনোদন বিচিত্রার প্রকাশক ও সম্পাদক দেওয়ান হাবিবুর রহমান এবং কলকাতার চলচ্চিত্র প্রযোজক-পরিচালক রেশমী মিত্র। ঋতুপর্ণা জানান, তার এবারের ঢাকা সফর মূলত তিনটি কাজ নিয়ে। প্রথমত: একটি স্যাটেলাইট চ্যানেলের ঈদের একটি অনুষ্ঠানের শুটিং, ফ্যাশন হাউজ বিশ্ব রঙ-এর ফ্যাশন ফটোশুট এবং ঢাকার “জ্যাম” ছবির মহরত অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ। কথায় কথায় তিনি বলেন, আমার এবারের ঢাকা সফর সংক্ষিপ্ত। আরও দুয়েকদিন থাকার ইচ্ছে ছিল। কিন্তু ২৪ জুলাই প্রয়াত মহানায়ক উত্তম কুমারের প্রয়াণ দিবসে কলকাতায় শিল্পী সংসদের অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করাটা আমার জরুরী। তাই ২৪ জুলাই সকালের ফ্লাইটেই কলকাতা ফিরে যেতে হবে। ঋতুপর্ণা জানান, মূলত: দুঃস্থ শিল্পীদের কল্যাণেই উত্তম কুমার প্রতিষ্ঠিত এই সংগঠনের হয়ে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। এই প্রসঙ্গে তিনি বিনোদন বিচিত্রাকে বলেন, আমি খুবই লাকি এবং সম্মানিত বোধ করছি এই কারণে যে, আমাদের মহানায়ক প্রতিষ্ঠিত একটি সংগঠনের প্রধান পদে থেকে দায়িত্ব পালন করছি। উত্তম কুমার জীবদ্দশায় এর প্রেসিডেন্ট ছিলেন। উত্তম কুমারের মৃত্যুর পর সুপ্রিয়া দেবী, অনিল চ্যাটার্জী এবং বিকাশ রায়ের মতো ব্যক্তিত্ব এই সংগঠনের দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি আরও জানান, দুঃস্থ শিল্পীদের কল্যাণে কাজ করার জন্যে শিল্পী সংসদের ব্যানারে উত্তম কুমার দু’টি ছবি প্রযোজনা করেছিলেন। একটির নাম ‘বুনো পলাশের পদাবলী’ এটি উত্তম কুমার নিজেই পরিচালনা করেছিলেন। আরেকটি ছবি হলো ‘দুই পৃথিবী’। এই ছবিটির মাধ্যমে অভিনেতা ভিক্টর ব্যানার্জীর চলচ্চিত্রাভিষেক ঘটেছিল। ঋতুপর্ণা বলেন, “মহানায়ক উত্তম কুমার দুঃস্থ শিল্পীদের কল্যাণে যে ইচ্ছা বা উদ্দেশ্য নিয়ে শিল্পী সংসদ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, আমি চেষ্টা করছি সেই আন্তরিক ইচ্ছে ও উদ্দেশ্য নিয়ে কাজ করার।”
অর্ণব আদিত্য