ইলিয়াস কাঞ্চনের অপমানের প্রতিবাদে রাজপথে চলচ্চিত্র পরিবার

বেশ কয়েকদিন ধরেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো’তে বেশ কিছু ছবি ছড়িয়ে পড়ছে। যেখানে দেখা যায়,বাংলা চলচ্চিত্রের দর্শকনন্দিত চিত্রনায়ক ও সড়ক নিরাপদ আন্দোলনের নেতা ইলিয়াস কাঞ্চনের পোস্টারসংবলিত ব্যানার টাঙিয়ে কিংবা কুশপুত্তলিকা তৈরি করে সেখানে জুতার মালা রাখা হয়েছে।
বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভে ফেটে পড়েন সাধারণ মানুষ। যার প্রতিবাদও চলে ফেসবুকে। তবে এবার এই বাস্তবে এই নায়কের জন্য রাস্তায় নামলেন তাঁর সহকর্মীরা। আজ সোমবার বেলা ১২টায় বিএফডিসির সামনে মানববন্ধন করেন চলচ্চিত্রের শিল্পীরা।
যেখানে শিল্পীরা ছাড়াও অংশ নেন পরিচালক ও প্রযোজকরা। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর, সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খানের নেতৃত্বে এতে অংশ নেন পরিচালক নেতা মুশফিকুর রহমান গুলজার, বদিউল আলম খোকন, অভিনেত্রী অঞ্জনা, অরুণা বিশ্বাস,আলেকজান্ডার বো, ইমনসহ অনেকে।লিটন ও চলচ্চিত্র পরিবারের সদস্যরা।
মানববন্ধনে শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর বলেন, ‘ইলিয়াস কাঞ্চন আমাদের কাছে একজন সম্মানী লোক, সম্মানী শিল্পী। দেশের মানুষের রাস্তায় নিরাপদে চলাচলের জন্য ২৫ বছর ধরে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। মানুষের কল্যাণেই নিবেদিত এক প্রাণ। তাকে অপমান করা মানে শিল্পী সমাজকেই অপমান। আমরা তার অপমান সহ্য করব না। শিল্পীদের রাস্তায় নামতে বাধ্য করবেন না।’ সেইসঙ্গে অবিলম্বে নতুন সড়ক আইন বাস্তবায়ন করারও দাবি তোলেন তিনি।
পরিচালক সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার বলেন, ‘আমরা ইলিয়াস কাঞ্চনের পাশে আছি। তিনি বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষের রাস্তায় নিরাপদ চলাচল নিশ্চিতের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। যারা পরিবহন শ্রমিক তাদের নিরাপত্তার জন্যও তার দাবি ভূমিকা রাখবে। তাহলে তাকে কেন অপমান করা হচ্ছে। আমরা চাই ইলিয়াস কাঞ্চনকে কেউ ভুল না বুঝে তার দাবির প্রতি সম্মান জানিয়ে সেগুলো বাস্তবায়নে সহমত পোষণ করুক।’
বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান বলেন, ‘চিত্রনায়ক, পরিচালক, প্রযোজক ইলিয়াস কাঞ্চনের সঙ্গে যে অসম্মানজনক আচরণ করা হয়েছে তার জন্য আমাদের এই প্রতিবাদী কর্মসূচি। পাশাপাশি জাতীয় সড়ক নিরাপত্তা আইন- ২০১৮-এর পূর্ণ বাস্তবায়ন দাবি করছি আমরা।’তিনি জানান, প্রয়োজনে তারা আরও কর্মসূচি হাতে নেবেন।
উল্লেখ্য, ১৯৯৩ সালের এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় এলোমেলো হয়ে যায় নব্বই দশকের তুমুল জনপ্রিয় নায়ক ইলিয়াস কাঞ্চনের জীবন। কারণ সে বছরের ২২ অক্টোবর তার একটি ছবির শুটিং দেখতে যাওয়ার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান স্ত্রী জাহানারা কাঞ্চন। শোকার্ত ইলিয়াস কাঞ্চন এরপর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন আর সিনেমাও করবেন না। একসময় শুরু করেন ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলন। সাড়া জাগানো অনেক ছবির অভিনেতা ইলিয়াস কাঞ্চন সেই আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন এখনও।গত ২৬ বছর ধরে এই আন্দোলনের সাথে আছেন তিনি। আর এ কারণে বেশ কয়েকবার পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের রোষানলে পড়েন তিনি। সর্বশেষ গত সপ্তাহে ইলিয়াস কাঞ্চনের প্রতি আবারও নিচ হীনমন্যতা প্রকাশ করলো।
রোমান রায়