পাহাড়ের দেশ Gibraltar

Gibraltar দেশটির নাম কি জানা হয়েছে ফেসবুক এক বন্ধু আমাকে এই দেশটিতে গিয়েছি কিনা সেটা জিজ্ঞাসা করেছিল তারপর আমি গুগলে সার্চ করে এই দেশ সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করি।এবং মনে মনে তখনি ঠিক করে ফেলি এই দেশটিতে যেতে হবে যা মাত্র দুমাস আগের কথা, সেই অজানা বন্ধুটির নামটি মনে নেই তবে তাকে অনেক ধন্যবাদ এই দেশটিকে পরিচিত করার জন্য।
গত 4 নভেম্বর আমি 17 কোটি মানুষের বাংলাদেশী পাসপোর্ট নিয়ে 114 তম দেশ পদার্পণ করলাম Gibraltar । যে দেশটিকে একটি পাহাড়ের দেশ বলা হয়। সাড়ে ছয় কিলোমিটার এ এই দেশটির পাহাড় কে ঘিরে তার জনবসতি গড়ে উঠেছে এখানে প্রায় 32 হাজার লোকজন বসবাস করে এই ছোট্ট দেশ থেকে। এই দেশটি ইংল্যান্ডের অধীনে হওয়ায় এখানকার লোকজন ইংরেজি ভাষায় কথা বলে। এখানকার প্রধান পেশা ইন্সুরেন্স এবং মাল্টি ইন্টারন্যাশনাল কোম্পানি রয়েছে। এটা স্পেনের বর্ডারে সাথে এই ছোট দেশটির অবস্থান এবং পানিপথে মরক্কো রয়েছে।1713 এই দেশটি স্পেন থেকে ইংল্যান্ডের অধীনে আসে তারপর থেকেই এটি মোটামুটি স্বায়ত্তশাসিত একটি ছোট দেশ। এখানকার মানুষের আয় স্পেনের থেকে বহুগুণ বেশি মিনিমাম ওয়েজেস 1600 পাউন্ড।
The rock of Gibraltar বলা হয়ে থাকে এই দেশটিকে। দৃষ্টির স্বাধীনতা দিবস হচ্ছে ষোলোই নভেম্বর। Gibraltar day হয়ে থাকে। এটা ইউরোপের ভিতরে একমাত্র দেশ যেখানে বর্ডার কন্ট্রোল করে ঢুকতে হয়। শুধুমাত্র যাদের দীর্ঘমেয়াদী সেনজেন মাল্টিপল ভিসা আছে তারাই এই দেশটিতে ভ্রমন করার সুযোগ পায়।
এখানে অবশ্য ক্যাবল করার মাধ্যমে পাহাড়ের উপরে ওঠার যায় আবহাওয়া ভালো থাকলে।
এই দেশটিতে আসার জন্য সিভিল কিংবা মালাকা থেকে Algeciras শহরে এসে তারপরে লোকাল বাসে করে এখানে আসা যায়। পায়ে হেঁটে ইমিগ্রেশন পাড়ি দিয়ে ভিতরে ঢুকতে হয়। এর ভিতর হোটেল এর দাম অনেক বেশি থাকায় আমি পাশের লামিয়া শহরে ছিলাম কাউসার ফিংয়ের হোস্টের বাসায়। এখানে অনেক হোটেল নেই তুলনামূলকভাবে। অনেক সুন্দর রেস্টুরেন্ট আছে একটু প্রাইস টা বেশি। ক্যাসিনো রয়েছে খেলার জন্য বিনোদনের জন্য। যারাই একটু ইউরোপে এসে মালাক্কা এলাকাসহ দেখতে আসবেন ঘুরে যেতে পারেন যাদের লংটাইম সেনজেন ভিসা আছে।
কাজী আসমা আজমেরী