কলকাতার বিজয়া সম্মিলনীতে সম্মানিত হলেন আঁখি আলমগীর

দেশীয় সঙ্গীতের সুরের দেবী আঁখি আলমগীরের সাফল্যের ডানায় যুক্ত হলো আরেক পালক। দীর্ঘ সঙ্গীত ক্যারিয়ারে সুন্দরী সুরেলা এই গায়িকা অনেকবার ভারতে শো করেছেন, গানে আর সুরে মাতিয়েছেন। অনেক পুরস্কারও পেয়েছেন। কিন্তু এবার আঁখি সম্পুর্ন নতুন এক সম্মান অর্জন করলেন ভারতের বাংলা রাজ্যের কলকাতায়।
কলকাতার বিজয়া সম্মিলনীতে সম্মানিত হলেন আঁখিআঁখি আলমগীর তার ফেসবুক পোস্টে লিখেছেন ১ নভেম্বর আমার জন্যে বিশেষ একটি রাত ছিল। কলকাতার কামালগাজীতে নেতাজী স্পোর্টস কমপ্লেক্সে অনুষ্ঠিত বিজয়া সম্মিলনীতে গান করি। একই মঞ্চে গান করেন আমার প্রিয় শিল্পী, ভারতের কিংবদন্তি গায়ক কুমার শানু। সম্মানিত এমপি শুভাশীষ চক্রবর্তী, এমএলএ ফিরদৌসী বেগম এবং প্রখ্যাত সাংবাদিক কৃষ্ণ কুমার দাস অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। তাঁরা আমাকে নিয়ে কিছু সম্মানজনক কথা বলেন। এরপর এই তিন গুণী মানুষ আমাকে আর কুমার শানু দাদাকে ফুল, উত্তরীয়, ক্রেস্ট এবং আমাদের পেইন্টিংস উপহার হিসেবে আমাদের হাতে তুলে দেন। সেখানে উপস্থিত ছিলেন ৩০ হাজার দর্শক। তারা তাদের ভালোবাসা এবং সমর্থন প্রকাশ করেন। নিঃসন্দেহে এটি আমার এবং আমার মিউজিশিয়ানদের কাছে স্মরণীয় একটি ইভেন্ট হয়ে থাকবে। আমি সৃষ্টিকর্তা, আমার পরিবার, বন্ধু এবং শুভাকাক্ষীদের কৃতজ্ঞতা জানাই তারা সব সময় আমাকে উৎসাহ দেওয়ার জন্যে। এটি ছিল দুই দেশের মধ্যে সত্যিকারের অনবদ্য বন্ধন। আমি আরও একবার কলকাতাবাসীর ভালোবাসার কাছে ঋণী হয়ে রইলাম।
গেলো ১ নভেম্বর তিনি তার পাঁচজন মিউজিশিয়ান সহ কলকাতায় যান। এরা হলেন পার্থ প্রতীম আচার্য, সামু বড়–য়া, উজ্জ্বল ভট্যাচার্য, রানা জাকের ও মেহেদী হাসান শাকিব। আঁখি জানান, এমএলএ ফিরদৌসী বেগমের আমন্ত্রণে তারা উত্তর বিধান সভার বিজয়া সম্মিলনীতে সঙ্গীত পরিবেশন করতে যান। প্রতিবছর দীপাবলীর পর কলকাতার কামালগাজীতে নেতাজী স্পোর্টস কমপ্লেক্সে ওপেন এয়ার কনসার্ট আয়োজন করেন আয়োজকরা। এবারের অনুষ্ঠানে আঁখি আলমগীর তার পাঁচ জন মিউজিশিয়ান নিয়ে টানা দুই ঘণ্টা সঙ্গীত পরিবেশন করেন। বাংলাদেশের জনপ্রিয় এই কণ্ঠতারকার সুরের মূর্ছনায় অনুষ্ঠানে আগত ৩০ হাজার দর্শক মুগ্ধ হয়ে শিল্পীর প্রতি তাদের অকুণ্ঠ ভালোবাসা প্রদর্শন করেন।
প্রসঙ্গে বলেন, এটি আমার সঙ্গীত জীবনের স্মরণীয় একটি ঘটনা। কলকাতাবাসীর অকৃত্রিম ভালোবাসায় সত্যিই আমি ধন্য ও মুগ্ধ। আমি তাদের ভালোবাসায় ঋণী হয়ে রইলাম।
অঞ্জন দাস