সাব্বিরকে নতুন গানের দায়িত্ব দিলেন আলম খান

আলম খান ও সাব্বিরদীর্ঘদিন অসুস্থতার পর এখন কিছুটা সুস্থ আছেন কিংবদন্তি সংগীত পরিচালক আলম খান। তাই আবারও হারমোনিয়াম টেনে গানে বসেছিলেন। চলচ্চিত্রের জন্য নতুন সুর বেঁধেছেন এই বরেণ্য। বলা যায়, অনেকটা আবদার রক্ষার্থেই কাজটি করছেন এই গুণী। ঘটনার সূত্রপাত নির্মাতা-অভিনেতা ডিপজলের কাছ থেকে। নতুন ছবি ‘সত্য বচন’-এর কাজ করবেন ডিপজল। আলম খানকে ফোন করে বলেন, ‘তিনি (আলম খান) না থাকলে ছবিটি করবেন না। দরকার হয় সুরকারের পছন্দমতো শিল্পীকে নিয়ে কাজ করবেন, তবুও থাকতে হবে।’ বিপদে পড়ে যান এই কিংবদন্তি। এরপর সাব্বিরকে বাসায় ডেকে এনে বলেন গানটি গাইতে ও সংগীতায়োজন করতে। বিষয়টি জানা গেল সাব্বিরের কাছ থেকেই। ফলে প্রথমবারের মতো আলম খানের সুরে গাইছেন সাব্বির জামান। এর সংগীতও করেছেন তিনি। গানটির কথা লিখেছেন মুন্সী ওয়াদুদ। গানের শিরোনামটি হলো- ‘চল হারিয়ে যাই রে’।
১৯ অক্টোবর আলম খানের বাসায় গানের সেশনে বসেছিলেন সাব্বির। সেখানেই হারমোনিয়ামে এর সুর তুলে দেন আলম খান। সাব্বির বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এদেশের প্রথিতযশা শিল্পীরা উঠে এসেছেন আলম খানের হাত ধরে। তার সুরে আজ আমি গাইলাম! এই কাজটি আমার জীবনের একটি মাইলফলক হয়ে থাকবে। একজন লিজেন্ডারি সংগীতজ্ঞের গানে সংগীতায়োজনের পাশাপাশি গাইলাম! এটাই আমার পরম পাওয়া। ‘সত্য বচন’ ছবিটি পরিচালনা করেছেন এফআই মানিক। এর কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করছেন ডিপজল ও মৌসুমী।
উল্লেখ্য, জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত সুরকার ও সংগীত পরিচালক আলম খানের ফুসফুসে ক্যানসার ধরা পড়ে ২০১০ সালে। ব্যাংককের একটি হাসপাতালে অস্ত্রোপচার করার পর তিনি সুস্থ হয়ে দেশে ফেরেন।
এছাড়াও ২০১৫ সালে তার হৃদযন্ত্রে ধরা পড়া একটি ব্লকে রিংও পড়ানো হয়েছে। আলম খানের পেশাগত জীবনের শুরু ১৯৬৩ সালে। রবিন ঘোষের সহকারী হিসেবে ‘তালাশ’ সিনেমায় সংগীত পরিচালনা করেন।
১৯৭০ সালে আবদুর জব্বারের ‘কাচ কাটা হীরে’ সিনেমায় এককভাবে সংগীত পরিচালনা করেন। তার সুরারোপিত কালজয়ী গানগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘ওরে নীল দরিয়া’, ‘আমি একদিন তোমায় না দেখিলে’, ‘তুমি যেখানে আমি সেখানে’, ‘সবাই তো ভালোবাসা চায়’, ‘আমি রজনীগন্ধা ফুলের মতো’, ‘হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস’, ‘জীবনের গল্প আছে বাকি অল্প’, ‘বাংলাদেশ’ ইত্যাদি।
রোমান রায়