বিনোদন বিচিত্রার সাথে দর্শকনন্দিত অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা

কলকাতার জনপ্রিয় অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। এখনও দাপটের সাথে টালিগঞ্জে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।পাশাপাশি বলিউডের সিনেমায়ও তিনি অভিনয় করছেন। ‘দহন’ সিনেমায় অনবদ্য অভিনয়ের জন্য সর্বোচ্চ সম্মানসূচক জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার তার হাতে উঠেছে। ওপার বাংলার এই জনপ্রিয় অভিনেত্রীর সাথে ঢাকার সিনেমায় সখ্য গড়ে উঠে ১৯৯৭ সালে মনোয়ার খোকন পরিচালিত ‘স্বামী কেন আসামী’ সিনেমা দিয়ে। ঢাকার সিনেমায় তার অভাবনীয় সাফল্য তাকে জনপ্রিয়তায় আরো শীর্ষে পৌঁছে দেয়। এদেশের মানুষের ভালোবাসায় তিনি ঢালিউডে অন্যতম চাহিদা সম্পন্ন নায়িকা বনে যান। এতো বছর পার হয়ে গেলেও আজও তার দর্শক চাহিদা রয়েছে এপার বাংলা। দর্শক নন্দিত এই অভিনেত্রী সম্প্রতি ঢাকায় এসেছেন নতুন সিনেমার কাজ করতে। কৃতাঞ্জলি প্রোডাকশন প্রযোজিত নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামুল পরিচালিত ‘জ্যাম’ সিনেমায়। শুটিংর ফাঁকে ফাঁকে তার সাথে বিনোদন বিচিত্রার প্রতিবেদক রোমান রায় কথা বলেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তের সাথে।

বিনোদন বিচিত্রাঃ বাংলাদেশে আপনার প্রথম সিনেমা ‘স্বামী কেন আসামী’ এর সাফল্যের পর ভীষণ ব্যস্ত হয়ে পড়েন এদেশে।একচেটিয়া কাজ করার পর বিরতিতে চলে যান,এটা কেন?
ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তঃ এটা ঠিক প্রথম সিনেমার সাফল্যের পর ঢাকার সিনেমায় ব্যস্ত হয়ে পড়ি এবং একটানা করি। কিন্তু মাঝের সময়টা’তে আমাকে কলকাতার সিনেমায় ব্যস্ত থাকতে হয়। এবং আরেকটা সমস্যা হচ্ছিলো সেটা হলো এদেশে কাজ করার ওয়ার্ক পারমিট সহসাই মিলতো না। এরজন্য আমাকে মাঝের সময়টাতে ঢাকার সিনেমায় কম দেখা গিয়েছে।
বিনোদন বিচিত্রাঃ মূলধারার ও বিকল্পধারার দুই ধারার সিনেমায় কাজ করেছেন। একজন অভিনয়শিল্পীর কোন ধারাটা বেশী প্রভাব ফেলে?
ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তঃ বলিউডের অনেক মূলধারার তারকারা আছেন তারা টিপিক্যাল কমার্শিয়াল চলচ্চিত্রের সঙ্গে কনটেন্ট নির্ভর সিনেমায়ও কাজ করে যাচ্ছেন।এভাবে যদি আমরা কাজ না করি তাহলে ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গে চলতে পারবো না। সিনেমার কমার্শিয়াল ভ্যালুটাকে ঠিক রেখে আরও বিষয়ভিত্তিক সিনেমা করা গেলে সেটা অবশ্যই ভালো। আমি আসলে ক্যারিয়ারে ব্যালেন্স আনতে চাইছি।দর্শকরা আমাকে সব রকমভাবেই পাবে। আমি পুরো ইন্ডাস্ট্রিকে এক্সপ্লোর করতে চাই।নতুন স্বাদের সিনেমার সঙ্গে থাকতে চাই। আমি সিনেমাটা খুব ভালোবাসি। সিনেমায় এক্সপেরিয়েন্স ও এক্সপেরিমেন্ট এর মধ্যে থাকতে চাই।সিনেমা আমার ভালোবাসার ও ভালোলাগার জায়গা।আমি সিনেমা ছাড়া আর কিছু ভাবিনা।
বিনোদন বিচিত্রাঃ আপনি সব সময়ই চরিত্র প্রধান গল্পে অভিনয় করে থাকেন। এখন যে সিনেমাগুলো’তে কাজ করছেন,সেগুলো’তে কি আপনার চরিত্র প্রধান আছে?
ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তঃ আমি সব সময়ই চরিত্র প্রধান গল্পে অভিনয় করে আসছি আর এখনও তাই করছি।সামনে আমার অভিনীত সিনেমাগুলো মুক্তি পেলে দর্শকরা তা বুঝতে পারবেন।
বিনোদন বিচিত্রাঃ প্রয়াত নায়ক মান্না’র সাথে আপনি অনেকগুলো সিনেমায় অভিনয় করেছেন। আজ তার প্রযোজনা সংস্থা কৃতাঞ্জলি প্রোডাকশনের সিনেমায় কাজ করছেন অথচ সেই মান্না আজ নেই। বিষয়টা আপনাকে কতোটা ব্যথিত করে?
ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তঃ নিশ্চুপ হয়ে গেলেন(আবেগতাড়িত) মান্না ভাইয়ের চলে যাওয়াটা আমার মাঝে একটা ব্যথার জায়গা।মান্না ভাইয়ের সাথে কাজ করতে অনেক ভালো ভালো স্মৃতি রয়ে গিয়েছে। মান্না ভাইয়ের পরিবারের সঙ্গেও আমার ভীষণ ভালো একটা সম্পর্ক রয়েছে।আমি মান্না ভাইয়ের পরিবারের সাথে যুক্ত আছি আর সব সময় থাকবো।
বিনোদন বিচিত্রাঃ ‘জ্যাম’ সিনেমায় অভিনয় করছেন।জ্যাম নিয়ে কেমন বিড়ম্বনায় পড়তে হয়?
ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তঃ সব শহরেই কম বেশী জ্যাম রয়েছে।তবে, ঢাকা শহরে একটু বেশীই মনে হচ্ছে।এবার আগের তুলনায় একটু কম জ্যাম পেলাম।এর আগে ঢাকার শহরে জ্যাম রাস্তায় ঘন্টার পর ঘন্টা ভোগান্তি করিয়েছে। জ্যাম নিয়ে কত রকমের মিস আন্ডারস্ট্যান্ডিং হতে পারে সেটাই তুলে ধরা হয়েছে সিনেমা’তে।
বিনোদন বিচিত্রাঃআপনি অনেক সিনেমায় কাজ করেছেন।কখনো কি মনে হয়েছে এই কাজগুলো করাটা ভুল হয়েছে?
ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তঃ এমন অনেক কাজ আছে যেগুলো করার পর মনে হয়েছে আসলে এগুলো করা আমার ঠিক হয়নি। প্রথমে হয় কি যারা আমার কাছে কোনো কাজের অফার নিয়ে আসে ভালো করুক ভালো হোক এরজন্য উৎসাহ দেই। কিন্তু কাজটা ঠিকঠাক মতো করতে পারেনা।তখনই মনে হয় কাজটা করা ঠিক হয়নি।
বিনোদন বিচিত্রাঃ আপনি সমালোচনাকে কিভাবে দেখেন?
ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তঃ আগে আমার কোনো কাজের সমালোচনা হলে মন খারাপ হয়ে যেতো। কষ্ট পেতাম কেন আমাকে এগুলো বলছে,তারা এমন ভাবে কেন নিচ্ছে।কিন্তু এখন না সমালোচনা না থাকলে ভালো কাজ বেড়িয়ে আসতে পারেনা। আমি এখন সমালোচনাকে পজিটিভ ভাবে দেখি।
বিনোদন বিচিত্রাঃ অভিনয় জীবনে আপনি অনেক জনপ্রিয়তা, প্রশংসা এবং পুরস্কার পেয়েছেন। তবুও কি কোনো অপ্রাপ্তি কাজ করে আপনার মাঝে?
ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তঃ আমার অপ্রাপ্তির চেয়ে প্রাপ্তিটাই বেশী। পাওয়ার তো আর শেষ নেই।যেগুলো পেয়েছি সেগুলো’কে তো আর ইগনোর করতে পারবোনা। আমিও পুরোপুরি সন্তুষ্ট নই।আমার ভিতরে ক্ষুধা আছে।আমি আরো কাজ করে যেতে চাই।
বিনোদন বিচিত্রাঃ বর্তমানে আপনার হাতে কি কি কাজ রয়েছে?
ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তঃ ঢাকায় ‘জ্যাম’ ও ‘গাঙচিল’ করছি।অনুরাগ কাশ্যাবের হিন্দি সিনেমা ‘বাসুরি’ করছি।কলকাতায় নতুন সিনেমা আসছে ‘পার্সেল’ ‘গুডমর্নিং সানশাইন’,লাইম অ্যান্ড লাইট,শিবপ্রসাদ-নন্দিতার ‘বেলাশুরু’।এছাড়াও বেলাশেষ’র সিকুয়েল আসছে।