৩শ মেয়ের মধ্যে রামগোপাল আমায় বেছে নেন: নয়না

‘চরিত্রহীন’ ওয়েবসিরিজে নয়না গঙ্গোপাধ্যায়ের অভিনয় প্রশংসা কুড়িয়েছে দর্শকের। তবে নয়না এই মুহূর্তে বলিউডে মনোযোগী। কলকাতায় এসে এক আড্ডা জমালেন তিনি। জানালেন, বাংলা ছবিতে যদি খুব ভাল বিষয় ও ভালো পরিচালক হয় তাহলে অবশ্যই তিনি বাংলা সিনেমা করবেন। তিনি তবে এই মুহূর্তে আমি হিন্দি প্রজেক্টের দিকেই ফোকাস করতে চাই। তেলুগু ছবি ‘জহর’-এ যে ধরনের চরিত্র করেছেন, সেটার সঙ্গে বাংলা ওয়েব সিরিজের কোনও মিল নেই। এই ছবিটা করার বিশেষ কারণ জানাতে গিয়ে নয়না বলেন, ‘আসলে এমন নয় যে অনেক অফার আসে। তবে আমি যখনই কোনও চিত্রনাট্য পাই, চেষ্টা করি চ্যালেঞ্জিং চরিত্র বাছার, এবং সেই ছবির কাজই নিই।
যেমন ‘চরিত্রহীন’-এ বেশ বোল্ড চরিত্র ছিল, সঙ্গে অভিনয়েরও সুযোগ ছিল। তেমনই ‘জহর’ ছবিতে আমি গ্রামের মেয়ের চরিত্র করছি যে রাস্তায় সার্কাস দেখাতে দেখাতেই একজন অ্যাথলিট হয়ে ওঠে। ছবিতে কোনও হিরো নেই। আমি প্রধান চরিত্র। আবার আমার আগামী যে চারটি হিন্দি ছবি বেছেছি, সেগুলো সবই আলাদা আলাদা চ্যালেঞ্জিং চরিত্র। কোনওটায় বোল্ড গ্ল্যামারাস চরিত্র, কোনোটায় গ্রামের মেয়ে, আবার আর একটায় হাউজওয়াইফ।
নয়না মানেই হট ডিভা নাকি অভিনেত্রী, কোন তকমা পছন্দ? এমন প্রশ্নে নয়না বলেন, দর্শকরা আমাকে যেভাবে পছন্দ করবেন সেভাবেই দেখতে পাবেন। তবে আমি নিজেকে অভিনেত্রী হিসেবেই দেখতে চাই।
রামগোপাল ভার্মা আপনার মেন্টর, আপনার সঙ্গে কথা বলে তাই মনে হয়। আপনাকে কীভাবে প্রভাবিত করেছেন তিনি?
হ্যাঁ, আমি সব সময়েই আর জি বি স্যারের নাম নিই। ওর কথা বলি। কারণ, প্রায় তিনশো মেয়ের মধ্যে আমাকে পছন্দ করেছিলেন। জানি না, আমার মধ্যে উনি কী দেখেছিলেন, আমাকে উনি প্রশ্ন করেছিলেন, সেটা সবাইকেই করেন, যে আমি কী হতে চাই, পরিণীতি চোপড়া নাকি সানি লিওনি। আমি বলেছিলাম পরিণীতি হতে চাই। উনি বুঝতে পেরেছিলেন আমি অভিনেত্রী হতে চাই। যখনই কোনও অফার পাই, আমি কনফিউজড থাকলে তাকে জিজ্ঞেস করি। গল্প শুনেই বলে দেন কোনটা হিট হবে। চরিত্রহীন-এর গল্প শুনেই বলেছিলেন এটা হিট হবে। স্যার বলেন, কোনও চরিত্র করতে গিয়ে কনফিউজড হলে সেটা না করাই ভাল। কারণ, অভিনয় করতে গিয়ে আড়ষ্ট হলে দর্শকদের চোখে ভাল লাগবে না। তার সঙ্গে কাজ করে অনেক কিছু শিখেছি। বেশি টেক নেন না। তাছাড়া কত তারকা পেয়েছে বলিউড তার থেকে। বিবেক ওবেরয়, মনোজ বাজপেয়ী।
অঞ্জন দাস