নিউইয়র্কে ফোবানা কনভেনশনের উদ্বোধন

নতুন প্রজন্মের মারফত রহমান এবং তাওহিদ প্রান্তকে দিয়ে উদ্বোধন করা হলো ‘আমার সন্তান-আমার অহংকার’ ম্লোগানে উজ্জীবিত ৩ দিনব্যাপী ফোবানা কনভেনশনের। উদ্বোধনী সমাবেশে এই কনভেনশনের আহবায়ক নার্গিস আহমেদ সকলের প্রতি উদাত্ত আহবান জানান, প্রিয় মাতৃভূমির ইমেজ মহিমান্বিত রাখতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। এজন্যে সকল ভেদাভেদ ভুলে যেতে হবে।
কানাডা ও যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্য থেকে ৭৬ সংগঠনের শত-সহগ্র প্রতিনিধির উপস্থিতিতে ৩০ আগস্ট শুক্রবার রাতে নিউইয়র্কের লং আইল্যান্ডে বিশ্বখ্যাত নাসাউ কলসিয়াম সংলগ্ন ম্যারিয়ট হোটেলের বলরুমে শুরু হয়েছে ফোবানা কনভেনশন। এই কনভেনশনের ৩৩ বছরের ইতিহাসে এবারই রেকর্ডসংখ্যক প্রবাসীর সমাগম ঘটে উদ্বোধনী পর্বে। এই ধারা বজায় রেখে পরবর্তী দুদিনের কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হবে ১৭ হাজার ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন নাসাউ কলসিয়ামের বিশাল অডিটরিয়ামে।
শতাধিক শিল্পীর অংশগ্রহণে বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন থেকে একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীন বাংলাদেশকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সোনার বাংলা রচনার পথে চলমান বিভিন্ন পর্ব উপস্থাপিত হয় নাচ, গান আর কবিতার পংক্তিতে। কনভেনশন কমিটির সদস্য সচিব আবির আলমগীরের সাবলিল উপস্থাপনায় উদ্বোধনী পর্বে বিশাল অংকের তহবিল গড়তে সহায়তাকারি ১২ জনকে বিশেষভাবে সম্মান জানানো হয় ‘ফোবানা আইকন’-এ ভূষিত করে। কনভেনশনের শেষ দুদিনের জন্যে নাসাউ কলসিয়ামের ভাড়া হচ্ছে ৩ লাখ ৬২ হাজার ডলার। এর পুরোটাই তারা দিয়েছেন। ফেডারেশন অব বাংলাদেশি অগ্যানাইজেশন্স ইন নর্থ আমেরিকা তথা ফোবানার এই কনভেনশনে শুভেচ্ছা জানান নাসাউ কাউন্টির এক্সিকিউটিভ লোরা কোরেন, স্টেট এ্যাসেম্বলিওম্যান এলিসিয়া হাইন্ডম্যান।
স্বাগত বক্তব্যে ফোবানার নির্বাহী চেয়ারম্যান মীর হোসেন এবং নির্বাহী সচিব জাকারিয়া চৌধুরী বলেন, লাল-সবুজের পতাকা প্রবাস প্রজন্ম যাতে হৃদয়ে ধারণ করে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা রচনায় সকলে সম্মিলিত প্রয়াস অব্যাহত রাখতে পারি-সে তাগিদেই ফোবানার এই অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখা হবে। তারা উভয়ে এবারের হোস্ট ‘ড্রামা সার্কল’কে বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানান দলমত নির্বিশেষে সকল ধারার প্রবাসীকে সমবেত করার জন্যে।
এ সময় আয়োজক কমিটির প্রেসিডেন্ট ড. দেলোয়ার হোসেন, প্রধান উপদেষ্টা মোহাম্মদ আমিনুল্লাহও বক্তব্য দেন। সংক্ষিপ্ত আলোচনা পর্বের আগে অনুষ্ঠিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের সঞ্চালনা করেন ফাতেমা সাহাব রুমা। এ সময় অডিটরিয়ামে ছিলেন ফোবানার নির্বাহী কমিটির সকল কর্মকর্তা, সাবেক চেয়ারম্যান বৃন্দ, এছাড়াও ছিলেন অতিথিগণ।
কনভেনশনে বিষয়ভিত্তিক ৮টি সেমিনারে অংশগ্রহণের জন্যে এসেছেন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় এবং প্রতিষ্ঠানের শীর্ষ কর্মকর্তারা। সেমিনারের সমন্বয় করছেন যুক্তরাষ্ট্রের হোমল্যান্ড সিকিউরিটি ডিপার্টমেন্টের শীর্ষ অর্থনীতিবিদ ড. ফাইজুল ইসলাম। অনুষ্ঠিত হবে কাব্য জলসা, কবি সমাবেশ, মিস ফোবানা এবং ফোবানা মিউজিক আইডল। এছাড়া মেধাবি ১০ ছাত্র-ছাত্রীকে বৃত্তি প্রদান করা হবে। বিভিন্ন ভার্সিটিতে অধ্যয়নরত ৪ শতাধিক ছাত্র-ছাত্রীর সমন্বয়ে অনুষ্ঠিত হবে ইয়ুথ কনফারেন্স। এটি হবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি অধ্যায়-যার প্রত্যাশা ছিল, অনেক আগে থেকেই। বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত আমেরিকান যুব সমাজের মাধ্যমে বাংলাদেশ ও বাঙালি সংস্কৃতির ফল্গুধারা বহুজাতিক এ সমাজে ছড়িয়ে দেয়া সম্ভব হবে বলে আশা করছেন সকলে।
আকবর হায়দার কিরণ