ঈদে বৈশাখী টিভিতে ২৮ নাটক

ঈদুল আজহা উপলক্ষে বৈশাখী টেলিভিশনে ঈদের আগের দিনসহ ৮ দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালায় প্রচার হবে ২৮টি নাটক। এছাড়াও থাকবে নানা আয়োজন। নাটকগুলোর মধ্যে ৯টি একক, ১৪টি মেগা এবং ৫টি বিশেষ ধারাবাহিক। ঈদের বিশেষ একক নাটকগলোর মধ্যে বৈশাখী টিভির উপব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান সম্পাদক টিপু আলম মিলনের গল্পে নির্মিত হয়েছে ৪টি একক ও ২টি ধারাবাহিক। একক নাটক ৪টির মধ্যে মিলন ভট্টাচার্য্য’র পরিচালনায় ‘হঠাৎ সেলিব্রেটি’, সকাল আহমেদ পরিচালনা করেছেন ‘ঘরকা মুরগী ডাল বরাবর’,আকাশ রঞ্জন পরিচালনা করেছেন ‘ভাবীর দোকান-২’, সৌর্য দীপ্ত সূর্য পরিচালনা করেছেন ‘ডিজিটাল প্রতারণা’ এবং ধারাবাহিক দুটির মধ্যে আদিবাসী মিজান পরিচালনা করেছেন ‘লো প্রেসার’ ও ‘জামাই বাজার’ পরিচালনা করেছেন আল হাজেন। বাকি তিনটি ধারাবাহিকের মধ্যে জিয়াউর রহমান জিয়ার রচনা ও পরিচালনায় ‘ভানুমতি ডট কম’, জাকির হোসেন উজ্জ্বলের রচনা ও এস এম শাহীনের পরিচালনায় ‘মফিজের লাইফস্টাইল’ এবং শাহরিয়ার সুমনের রচনা ও পরিচালনায় ‘হিসাবের পাগল’।
একক নাটকগুলোর মধ্যে ফাইয়াজুজ্জামান তামিমের রচনা ও এফ জামান তাপসের পরিচালনায় ‘ওয়ান মিলিয়ন ভিউ’, জিয়াউর রহমান জিয়ার রচনা ও পরিচালনায় ‘মধ্যরাতের সেবা’, আনন জামানের রচনা ও শুদ্ধমান চৈতনের পরিচালনায় ‘সীমান্তহীন পাখী’, মীর্জা রাকিবের রচনা ও সাদেক সিদ্দিকীর পরিচালনায় ‘বউ পাগলা বাদশা’ এবং সিদ্দিকুর রহমানের রচনা ও পরিচালনায় ‘দাদার ভিমরতি’। প্রতিদিনর মেগা নাটক হলো, আয়নামতি, বউয়ের দোয়া পরিবহন-২, ঈদ বোনাস, নায়িকার বিয়ে-২, সিনেমাটিক, প্রেমের নাম বেদনা, ফলস আইটেম, লাল দালান, দাদার দেশের ডাক্তার, ঘর জামাই, ব্রেক ফেইল, কিড সোলায়মান, কুফা রাশি, ভানুমতি ডট কম এবং চাল্ল মামার পাল্ল ভাগ্নে। এসব নাটকে অভিনয় করেছেন জনপ্রিয় তারকারা।
ঈদ অনুষ্ঠান নিয়ে বলতে গিয়ে বৈশাখী টিভির উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান সম্পাদক টিপু আলম মিলন বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, দেশীয় সংস্কৃতি এবং সম্মানীত দর্শক ও মা-মাটি মানুষের কথা ভেবে বাস্তবতার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে প্রতি ঈদেই বৈশাখী টেলিভিশন তার জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে অনুষ্ঠান সাজিয়ে থাকে। এবারও তার ব্যত্যয় হবে না সে কথা নির্দ্বিধায় বলতে পারি। গত ইদুল ফিতরে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের উন্মাদনার মধ্যে কয়েকটি টিভি চ্যানেলে সরাসরি খেলা স¤প্রচারের কারণে সবার দৃষ্টি ছিল সেদিকে। এরপরও বৈশাখী টেলিভিশন টিআরপি রিপোর্টে দ্বিতীয় হয়। এ অর্জন বৈশাখী টিভির প্রতি দর্শকদের অকৃত্রিম ভালোবাসা এবং বৈশাখী পরিবার সংশ্লিষ্ট সবার পরিশ্রমের ফল। সে ধারা অব্যাহত রাখতে চাই আগামীতেও।
রোমন রায়